পশ্চিমবঙ্গে দুর্ঘটনার কবলে ঢাকা-কলকাতা বাস

দুর্ঘটনার কবলে পড়লো ঢাকা-কলকাতা রুটের একটি যাত্রীবাহী বাস। সোমবার বড়দিনের সকালে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার দত্তপুকুরের হাটখোলা এলাকায় যশোর রোডের ওপর একটি ট্রাকের সাথে বাংলাদেশগামী বাসটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে গুরুতর আহত হয়েছেন দুইটি গাড়ির চালকসহ ৯ জন। সামান্য আহত হয়েছেন আরও ১০ জন। পরে গুরুতর আহতদের মধ্যে চার বাংলাদেশি নিজেদের দেশে ফিরে গেলেও বাকীদের বারাসাত জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

 

পুলিশ সূত্রে খবর, এদিন সকাল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ রয়্যাল কোচের বাসটি কলকাতার নিউ মার্কেট থেকে ছেড়ে বাংলাদেশের দিকে রওনা হয়। যাত্রাপথে দত্তপুকুরের হাটখোলাতে যশোর রোডের ওপর উল্টো দিক থেকে আসা বালুবোঝাই একটি ট্রাকের মুখোমুখি সংর্ঘষ হয় বাসটির। দুর্ঘটনার ফলে মারাত্মকভাকে ক্ষতিগ্রস্ত হয় রয়্যাল কোচ (ডব্লিউ.বি ৫৭এ০৭৮৯) বাসটির চালকের আসন ও সামনের দিকটি। আহত হন বাসের চালকসহ বাসটির সামনের সারিতে থাকা বেশ কয়েকজন যাত্রী। এর মধ্যে চালকসহ ৮ যাত্রীর গুরুতর আহত হন বলে জানা যায়। আহত হন ট্রাকটির চালকও।

 

দুর্ঘটনার পরই স্থানীয় বাসিন্দারা প্রথমে এসে উদ্ধারকাজে হাত লাগায়। পরে ঘটনাস্থলে আসে দত্তপুকুর থানার পুলিশ। এরপর বাসের চালকসহ পাঁচজনকে বারাসত জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তির জন্য পাঠানো হলেও বাকী আহতরা হাসপাতালে ভর্তি হতে না চাওয়ায় তাদের অ্যাম্বুলেন্স করে হরিদাসপুর সীমান্তের দিকে পাঠানো হয়।

রয়্যাল কোচের সুপারভাইসার মহম্মদ হাবিব জানান, ‘সকাল ৬টা১০ মিনিটের দিকে এই দুর্ঘটনাটি ঘটে। রাস্তার বাম দিকে একটি পাথর বহনকারী একটি ট্রাক দাঁড়িয়েছিল। আমাদের আসটি তখন একটি বাম্পার পার করে সামনের দিকে যাওয়ার সময়ই হঠাৎ করে উল্টো দিক থেকে অন্য একটি ট্রাক প্রচণ্ড গতিতে এসে বাসটিকে ধাক্কা মারে’।

 

দুর্ঘটনার জেরে যশোর রোডে প্রবল যানজটের সৃষ্টি হয়। প্রায় এক ঘণ্টা যান চলাচল ব্যহত হয়ে পড়ে। দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাস ও ট্রাকটিকে আটক করেছে পুলিশ। বাসের চালকের তন্দ্রাচ্ছন্ন অবস্থায় থাকার কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছে পুলিশ।

এদিকে বারাসত হাসপাতাল সূত্রে খবর, আহত যাত্রীরা প্রত্যেকেই স্থিতিশীল আছেন।

your add hare

Comments are closed.

     আরো খবর

Our Like Page