ব্রিটেনের হবু রাজবধূ কষ্টে আছেন

ব্রিটেনের হবু রাজবধূ মেগান মের্কেল অভিনয় ছেড়ে দিয়েছেন। রাজবধূ হওয়ার জন্য তার ত্যাগের তালিকায় আছে আরও অনেক কিছু। দাতব্য কাজ করতে পারবেন না, প্রিয় পোষা প্রাণীটিকেও রাজপ্রাসাদে আনতে পারবেন না, ক্যাজুয়াল পোশাক পরতে পারবেন না, ইচ্ছে হলেই নিজের মতো করে থাকতে পারবেন না। এত সব কিছু বাদ দেয়ার পরও মেগান বলছেন, জীবনের নতুন অধ্যায়ে প্রবেশের জন্য এই ত্যাগে তার অনুশোচনা নেই।

কিন্তু মেগান যত যা-ই বলুন না কেন, রাজপরিবারের অন্দরের খবর বের করে আনতে ব্রিটিশ গণমাধ্যমও পিছিয়ে নেই। বড়দিনের উৎসবে কেট মিডটলনের পাশে মেগানকে নাকি খুব নিষ্প্রভ লাগছিল। মেগান রাজপরিবারের নতুন সদস্য। রাজপরিবারের প্রথম বাগদত্তা হিসেবে এমন অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার সুযোগ পেয়েছেন। এখনো রাজা-রাণীদের কায়দা কানুন ভালো শিখে উঠতে পারেননি।

 

কিন্তু সে তুলনায় প্রিন্স উইলিয়ামের স্ত্রী কেট অনেক এগিয়ে। চার্চের সামনে রাণী এলিজাবেথ যখন বিদায় নিচ্ছিলেন কেট ও মেগান বিশেষ কায়দায় হাঁটু ভাজ করে সম্মান জানান। কিন্তু কেট ঠিকঠাকভাবে করতে পারলেও ব্যর্থ হয়েছেন মেগান। আর হলিউডের আত্মবিশ্বাসী অভিনেত্রীর ক্ষেত্রে এমন কায়দা-মানুষ বিশেষ মানায় না।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম সারাহ ভাইন ডেইলি মেইলের কলামিস্ট। টাইমসেরও হয়েও তিনি কাজ করেছেন। রাজপরিবারের সদস্যদের সামনে আনুগত্য প্রদর্শনের বিষয়ে নিজের অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়ে সারাহ লিখেছেন, ‘মেগান আমি আপনার কষ্ট বুঝি।’

 

সারাহ ভাইনের দাবি, রাজপরিবারের সদস্যদের সামনে মেগান ‘নার্ভাসনেস’ দেখিয়েছেন তা মোটেও তার স্বভাবসুলভ আচরণ নয়। এগুলো তাকে শেখানো হয়েছে। সারাহ ভাইন আরও লিখেছেন, বড়দিনের সেই অনুষ্ঠানে সবার মাঝে মেগানকে মনে হয়েছিল একা। তাকে নড়বড়ে অদ্ভূত প্রাণী মনে হয়েছিল। তিনি কাঁপছিলেন। প্রিন্স হ্যারি তাকে বার বার আশ্বস্ত করছিলেন কিন্তু মেগান স্বাভাবিক হতে পারেননি।

your add hare

Comments are closed.

     আরো খবর

Our Like Page