মেয়েকে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা, জামাইকে প্রকাশ্যে মারধর শাশুড়ির

অগ্নিদগ্ধ গৃহবধূ। স্ত্রীকে আগুনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টার অভিযোগে হাসপাতালের সামনে গণপিটুনি দেওয়া হল স্বামীকে। শনিবার সকালে এই ঘটনায় ধুন্ধুমার কাণ্ড ভারতের রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতাল চত্বরে।

পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আটক করা হয়েছে অভিযুক্ত সুকুমার মণ্ডলকে। মারের চোটে অচেতন হয়ে পড়েছেন জামাই সুকুমার। তাকে রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রায়গঞ্জ থানার বাহিন গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার মহারাজপুরের বাসিন্দা সুকুমার মণ্ডল। বছর চারেক আগে তার সঙ্গে বিয়ে হয় মাড়াইকুড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের নেতাজি মোড় এলাকার বাসিন্দা শিপ্রা (মমতা) শর্মার। বিয়ের পর থেকেই শিপ্রাকে তার শ্বাশুড়ি ও স্বামী অত্যাচার করত বলে অভিযোগ। শনিবার সকালে শিপ্রার গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে স্বামী ও শ্বাশুড়ি।

খবর পেয়ে শিপ্রার বাড়ির লোকেরা দ্রুত গিয়ে মেয়েকে রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে। এই সময় তাদের সঙ্গে ছিল সুকুমারও। সুকুমার এর হাত এবং মুখও ছিল অল্পবিস্তর পুড়ে যায়।

শিপ্রাকে ভর্তি করানোর পরই সুকুমারকে হাতের সামনে পেয়ে শিপ্রার বাড়ির লোক তার উপর চড়াও হয়। শুরু হয় উত্তমমধ্যম। মূলত ওই বধূর মা এবং আত্মীয়রা হাসপাতাল চত্বরেই সুকুমারকে গণপিটুনি দেয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। পরে সুকুমারকে আহত অবস্থায় আটক করে জেলা হাসপাতালেই ভর্তি করে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

your add hare

Comments are closed.

     আরো খবর

Our Like Page