ফুলবাড়ীর প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ভুলেভরা বাংলাদেশের মানচিত্র

কুড়িগ্রাম থেকে রতি কান্ত রায়ঃ টাইলস বাঁধানো বেদিরর উপর বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা হাওয়ায় উড়ছে। বেদির উপরের অংশে বসানো হয়েছে টাইলসের অঙ্কিত বাংলাদেশের মানচিত্র।কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীরা যাতে অতি সহজে এ মানচিত্র দেখে পরিচয় ঘটাতে পারে স্বদেশের সাথে । সেই পতাকা বেধিতে ছয়টি টাইলস দিয়ে বাংলাদেশের মানচিত্রের ছবি দেওয়া হয়। যা দেখে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা দেশের অনান্য জেলার নাম সহজে জানতে পারে। কিন্তু বাস্তবে প্রকাশ পাছে তার বিপরীত চিত্র । অসংখ্য ভুলেভরা ৬৪টি জেলার নাম শোভা পাছে ওই মানচিত্রে। আর সেই মানচিত্র দেখে জেলার ভুল বানান ও ভুল পরিচিতি শিখছে খুদে শিক্ষার্থীরা ।

জানাগেছে,কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নের ১৪০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে স্লিপের ৪০ হাজার টাকার ও (সি এফ এস ) ইউনিসেফের একটি প্রকল্পের মাধ্যমে পতাকা বেদি তৈরী করা বাধ্যতামূলক করে উপজেলা শিক্ষা অফিস। পতাকা বেদি নির্মানের সময় উপজেলা শিক্ষা অফিস সকল প্রাথমকি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের বাধ্য করে মানচিত্রে অঙ্কিত ভুলে ভরা টাইলসগুলো অত্র অফিস থেকে ৩৩শ টাকার বিনিময়ে সরবরাহ করতে।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক একাধিক প্রধান শিক্ষক জানান, মানচিত্রে অঙ্কিত টাইলস তারা নিজর পছন্দমত কিনতে চাইলে তা করতে দেননি উপজেলা শিক্ষা অফিস। ফলে বাধ্য হয়ে শিক্ষকেরা ওই টাইলসগুলো নিয়ে জাতীয় পতাকা বেদিতে স্থাপন করেন। মানচিত্রে বিভিন্ন উপজেলাকে জেলা ও বায়তুল মোকারম মসজিদকে জলা হিসেবে দেখানো হয়েছে। এ নিয়ে উপজেলার সুশিল সমাজ ও শিক্ষকরা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করছে।

সরেজমিনে গত ৮ জুলাই বড়ভিটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় শিক্ষার্থীরা পতাকা বেদিতে জেলার নাম ভুল দেখে সহপাঠিদের একে অপরকে ভুল বিষয়ে আলোচনা করছে। ওই বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র পারভেজ মোশারফ, রোকন মিয়া জানান, আমরা ভালো কিছু শিখতে চাই। এই ভুল মানচিত্রের পরিবর্তন চাই।

এ বিষয় জানতে চাইলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রিয়াজুল ইসলাম (ভারপ্রাপ্ত) জানান, এটি বিগত শিক্ষা অফিসারের সময় তৈরী করা। যা ভুল হয়েছে তা উর্দ্ধতন কর্তপক্ষকে দ্রুত অবগত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাছুমা আরফিনের সাথে মুঠাফোনে কথা হলে তিনি জানান, বিষয়টি আমি নিজে দেখে তার পর ব্যবস্থা নিব।

SHARE