দেশে সর্বোচ্চ করোনা রোগী সনাক্ত; মৃত্যু যত

একদিনে দেশে করোনায় সর্বোচ্চ সনাক্ত। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ১৪ জনের মৃত্যু ও নতুন শনাক্ত হয়েছে ১০, ৯০৬। ৩১ দশমিক ২৯ শতাংশ। করোনায় এ পর্যন্ত দেশে ২৮ হাজার ২২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬ লাখ ৮৫ হাজার ১৩৬ জনে। রোববার (২৩ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

গতকাল ১৭ জনের মৃত্যু ও নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৯ হাজার ৬১৪ জন। শনাক্তের হার ২৮ দশমিক ০২ শতাংশ। এদিকে বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারিতে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে। একইসঙ্গে আগের দিনের তুলনায় কমেছে নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যাও। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৬ হাজার ৩৫৬ জন। এ সময় রোগী শনাক্ত হয়েছে ২৭ লাখ ৯৫ হাজার ৮৯৩ জন।

রবিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। ওয়ার্ল্ডোমিটারসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩৪ কোটি ৯৮ লাখ ২৩ হাজার ৬৭৮ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫৬ লাখ ১০ হাজার ১৩৬ জনের।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় ফ্রান্সে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৮৯ হাজার ৩২০ জন এবং মারা গেছেন ১৬৭ জন। যুক্তরাষ্ট্র আক্রান্ত ৩ লাখ ১২ হাজার ৩১৪ জন এবং মৃত্যু ৮৪১ জন। রাশিয়ায় মারা গেছেন ৬৮১ জন এবং সংক্রমিত হয়েছেন ৫৭ হাজার ২১২ জন। যুক্তরাজ্যে আক্রান্ত ৭৬ হাজার ৮০৭ জন এবং মৃত্যু ২৯৭ জন। ইতালিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৭১ হাজার ২৬৩ জন এবং মারা গেছেন ২৮৯ জন।

কলম্বিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ হাজার ২৭ জন এবং মারা গেছেন ১৯৯ জন। জার্মানিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫ হাজার ৯০৩ জন এবং মারা গেছেন ১০৪ জন। ব্রাজিলে মারা গেছেন ৩৩২ জন এবং সংক্রমিত হয়েছেন ২ লাখ ২ হাজার ৪৬৬ জন। এছাড়া তুরস্কে ১৮৪ জন, দক্ষিণ আফ্রিকায় ১১৪ জন, পোল্যান্ডে ১৯৩ জন, কানাডায় ১৩৩ জন, আর্জেন্টিনায় ১৩৪ জন এবং ভিয়েতনামে ১৫৩ মারা গেছেন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে সংস্থাটি।

Back to top button