নাসিকে ভোটের দিন চলাচলের জন্য লাগবে জাতীয় পরিচয়পত্র

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন এলাকায় ভোটের দিন রোববার (১৬ জানুয়ারি) জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে কাউকে চলাফেরা করতে দেয়া হবে না বলে জানিয়েছে পুলিশ।  শনিবার (১৫ জানুয়ারি) শহরের পুলিশ লাইনসে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নির্বাচনি ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন পুলিশ সুপার মো. জায়েদুল আলম।

তিনি বলেন, ‘আমি বলতে চাই, কোনো বহিরাগতকে আমরা আগামীকাল নারায়ণগঞ্জে প্রবেশ করতে দেব না। প্রতিটি পাড়া মহল্লায় আমাদের যে মোবাইল টিম থাকবে, আমাদের চেক পোস্ট থাকবে, জাতীয় পরিচয়পত্র দেখে আমরা মানুষকে চলাচল করতে দেব। কালকে নারায়ণগঞ্জ মহানগর এলাকার যে বা যারা বের হবেন দয়া করে অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে বের হবেন, যাদের বয়স ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে।’

নির্বাচনের সার্বিক পরিবেশ সুষ্ঠু রাখতে ৫ হাজারেরও বেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নিয়োজিত করা হয়েছে বলেও জানান পুলিশ সুপার।তিনি বলেন, ‘কেউ যেন নির্বাচনের উৎসব, আমেজ বিনষ্ট করার চেষ্টা না করে। কোনো ধরনের দুষ্কৃতিকারী, অতি উৎসাহীমহল যদি ভোট কেন্দ্রে, ভোট কেন্দ্রের বাহিরে কোনো পাড়া মহল্লায় কোনো অরাজকতা তৈরির চেষ্টা করে কঠোর হস্তে দমন করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘১৮ বছরের ঊর্ধ্বের কাউকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন এলাকায় জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া চলাচল করতে দেয়া হবে না। তাই নারায়ণগঞ্জবাসীকে আগামীকাল (রোববার) এনআইডি নিয়ে চলাফেরার আহ্বান জানানো হয়েছে।’

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে ভোট উপলক্ষে শুক্রবার শেষ হয়েছে ১৭ দিনের বিরামহীন প্রচারণা। এবার ভোটের অপেক্ষা। রোববার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে একটানা ভোটগ্রহণ। ভোট হবে ইভিএম পদ্ধতিতে। পাঁচ বছরের জন্য নতুন নগরপিতা পাবে নারায়ণগঞ্জ।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র হতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মোট সাত জন প্রার্থী। আর ২৭টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদপ্রার্থীর সংখ্যা ১৪৮ জন। আর ৯টি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে প্রার্থীর সংখ্যা ৩২।নির্বাচনের মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১৯২টি। আর ভোটার রয়েছেন ৫ লাখ ১৭ হাজার ৩৬১ জন, যাদের মধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ২ লাখ ৫৯ হাজার ৮৪৬ জন, আর নারী ভোটার আছেন ২ লাখ ৫৭ হাজার ৫১১ জন।

১৯২টি কেন্দ্রের সব কটিতেই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএম পদ্ধতি ভোট অনুষ্ঠিত হবে। শনিবার সকালে শুরু হবে নারায়গঞ্জের জেলা প্রশাসন কার্যালয়ে অবস্থিত রিটার্নিং কর্মকর্তার অস্থায়ী কার্যালয় থেকে বিভিন্ন কেন্দ্রে নির্বাচনি সরঞ্জাম পাঠানোর কাজ।নির্বাচনের সার্বিক পরিবেশ নিয়ে স্বস্তিতে আছেন এই নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহফুজা আক্তার।

তিনি বলেন, ‘ইভিএম প্রচার চলেছে সারা দিন। ছিল মক ভোটিংয়ের ব্যবস্থা। আগামীকাল (শনিবার) আমাদের কেন্দ্রে সরঞ্জাম যাবে। তার আগে প্রিসাইডিং অফিসারদের একটি ব্রিফিং করা হবে। পুলিশ লাইনসে পুলিশ কর্মকর্তাদের একটি ব্রিফিং হবে। তারপর তারা মালামাল নিয়ে কেন্দ্রে চলে যাবে। সব প্রস্তুতি কার্যক্রম ভালোভাবে সম্পন্ন হয়েছে।’১৯২টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩০টি কেন্দ্রকে ‘অতি গুরুত্বপূর্ণ’ বা ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে নির্বাচন কমিশন।