সুনামির পর বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন টোঙ্গা

দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরের একটি জলমগ্ন আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের ফলে সুনামিতে ক্ষতিগ্রস্ত টোঙ্গা বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ক্ষয়ক্ষতি পর্যালোচনার জন্য সোমবার (১৭ জানুয়ারি) অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড সেখানে পর্যবেক্ষণকারী বিমান পাঠিয়েছে। খবর: রয়টার্সের।

অস্ট্রেলিয়ার প্রশান্ত মহাসাগর বিষয়ক মন্ত্রী জেড সেসেলা জানান, সেখানে উল্লেখযোগ্য কিছু ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। তবে টোঙ্গা বিমানবন্দর তুলনামূলকভাবে ভালো রয়েছে। সেখানে একজন ব্রিটিশ নারী নিখোঁজ হয়েছেন।

 অস্ট্রেলিয়ায় টোঙ্গার মিশনের ডেপুটি প্রধান কার্টিস টুইহালানগিনগি জানান, পর্যবেক্ষণকারী বিমানগুলো সোমবার সন্ধ্যার মধ্যে ফিরে আসবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। টোঙ্গা সরকার ত্রাণকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জানিয়ে তিনি সবাইকে ধৈর্য ধরার আহ্বান জানিয়েছেন।

টুইহালানগিনগি বলেন, ছাই যে বিষাক্ত আর এর মধ্যে নিঃশ্বাস নেওয়া যে ক্ষতিকর এবং তাদের যে মাস্ক পরা উচিত, অধিকাংশ মানুষই তা নিয়ে সচেতন না।

এদিকে আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাতের পর সৃষ্ট সুনামি টোঙ্গার উপকূলগুলোতে আঘাত হানে এবং পুরো দ্বীপটির ফোন ও ইন্টারনেট লাইন বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

Back to top button