দেশে স্বৈরশাসন চলছে : জি এম কাদের

দেশে স্বৈরশাসন চলছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের। তিনি বলেন, ১৯৯১ এর পর থেকে বাংলাদেশে প্রাতিষ্ঠানিক স্বৈরশাসন প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।
মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) শহরের একটি মিলনায়তনে ফেনী জেলা জাতীয় পার্টির সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

জি এম কাদের বলেন, আগামীর সরকার জাতীয় পার্টির সরকার। সরকারি দল প্রভাব বিস্তার করে নির্বাচন করবে। আওয়ামী লীগের প্রতি মানুষের আস্থার সংকট রয়েছে। তেমনি রয়েছে বিএনপির প্রতিও। তিনি বলেন, বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সরকার হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করেছে। তার নাম মুছে ফেলার ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। এ দেশে যতদিন জাতীয় পার্টির উন্নয়ন থাকবে ততদিন এরশাদ মানুষের মাঝে বেঁচে থাকবেন।

জি এম কাদের আরও বলেন, বর্তমান সরকার দেশের মধ্যে বিভেদ তৈরি করেছে। স্বাধীনতার চেতনাকে ব্যবহার করেই এ চেতনাকে ধ্বংস করছে। দেশের মানুষের স্বপ্ন ছিল, দেশের মালিক হবে জনগণ। এখন সেই দেশে জনগণের অবস্থান কোথায়? আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি দুই দলই দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। দেশে দুর্নীতি চরমভাবে বিস্তার করছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধগতির কারণে মানুষের জীবনযাপন অসহনীয় হয়ে উঠেছে।

জি এম কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে চরিত্রগত কোনো পার্থক্য নেই। দুই দলই জনবিচ্ছিন্ন দল, তারা নিজেদের কথা চিন্তা করে। জনগণের কথা চিন্তা করে না। জাতীয় পার্টিকে বলা হয় স্বৈরশাসকের দল। জাতীয় পার্টি স্বৈরশাসন করলে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি কী করছে? তিনি আরও বলেন, জাতীয় পার্টির ওপর প্রতিনিয়ত মানুষের আস্থা বাড়ছে, জাতীয় পার্টির প্রতি মানুষের প্রত্যাশা দেখছি। আমরা বিরোধী দল হলেও জনগণ আমাদের ওভাবে গ্রহণ করতে পারেনি, এটারও বাস্তবতা আছে।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফেনী জেলা জাতীয় পার্টির উপদেষ্টা, পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী এমপি। স্বাগত বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও ফেনী জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক মোতাহের হোসেন রাশেদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন ফেনী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার।

Back to top button