রমজানে সুস্থ থাকতে ইফতারে ৫ ফল জরুরি

পবিত্র মাহে রমজান আসন্ন। আর এই মাসে লুর চপ, পেঁয়াজু, বেগুনি ছাড়া ইফতার ভাবাই যায় না! কিন্তু এই খাবারগুলো খাওয়া খুব একটা স্বাস্থ্যকর নয়। কাজেই রোজার মধ্যে সুস্থ্য থাকতে পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে। এ সময়ে ইফতার ও সেহরিতে মানসম্পন্ন খাবার খাওয়ার কোনো বিকল্প নেই।

ইফতারে এমন কিছু খাবার রাখুন, যা আপনার শরীরকে ঠাণ্ডা রাখবে এবং সারাদিনের ক্লান্তি দূর করে শরীরকে কর্মক্ষম রাখবে।  শুধু তাই নয় সারাদিনের পানির চাহিদা পূরণ করবে সে খাবারগুলো। তাই ইফতারে রাখুন স্বাস্থ্যকর ফল; যা সব সময় শরীরকে ঠাণ্ডা রাখবে।

জেনে নিন রমজানে সুস্থ থাকতে যেসব ফল খাবেন :

কমলা : মৌসুমি ফল হলেও এখন প্রায় সারাবছরই কমলা পাওয়া যায়। কমলায় রয়েছে ৮০ শতাংশ পানি; যা গরমে আপনার শরীরকে হাইড্রেইটেড রাখবে। এছাড়া এতে পটাসিয়াম, ভিটামিন বি১, ভিটামিন এ, ক্যালসিয়াম ও কপার রয়েছে। কমলা দিয়ে বিভিন্ন ধরনের জুস, স্মুদি, মুজ ইত্যাদি বানিয়ে খেতে পারেন।

শসা : শসায় আছে ৯৫ শতাংশ পানি, ভিটামিন ও মিনারেল। ফলে শসা খেলে শরীর ভিতর থেকে ঠান্ডা করে। এতে ক্যালরি কম থাকে আর ফাইবার বেশি থাকে, ফলে ওজন কমাতে সহায়ক। তাই প্রতিদিন খাবারের শসা রাখতে চেষ্টা করুন। শসার জুসও খেতে পারেন।

তরমুজ : গরমের অন্যতম ফল তরমুজ। তরমুজে ৯২ শতাংশ পানি; যা শরীরের পানির চাহিদা পূরণ করে। এছাড়া এতে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন বি৬, ভিটামিন সি, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অ্যামিনো অ্যাসিড। তাই ইফতারের টেবিলে রাখতে পারেন তরমুজ।

আপেল : কথিত আছে— ‘প্রতিদিন একটি আপেল খান আর ডাক্তারকে রাখুন দূরে’। আপেল আপনার শরীরকে ঠাণ্ডা রাখতে সাহায্য করবে। আপেলে পেকটিন, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি এবং অন্যান্য অ্যাসেনশিয়াল পুষ্টি উপাদান রয়েছে। সবুজ আপেল খাওয়া খুবই স্বাস্থ্যকর।

আনারস : আনারসে রয়েছে ব্রোমেলিন যা এনজাইমের অন্যতম উৎস। এছাড়া আনারসে ভিটামিন সি, ভিটামিন বি৬, ফাইবার, ভিটামিন বি১, ম্যাগনেসিয়াম, প্যানটোথেনিক অ্যাসিড রয়েছে।

এছাড়াও গরমে শরীর ঠাণ্ডা রাখতে খেতে পারেন টক দই। টক দই শুধু শরীরকেই ঠাণ্ডা রাখে না, বরঞ্চ খারাপ কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। ওজন কমাতে টকদইয়ের কার্যকরী ভূমিকার কথাতো আমরা সবাই জানি। আইসক্রিম বা সফট ড্রিঙ্কস-এর পরিবর্তে খাদ্য তালিকায় তাই টক দই কিন্তু রাখতে পারেন।

Back to top button