‘আ.লীগের অধীনে নির্বাচনে যাওয়া মানে রাজনৈতিক মৃত্যু’

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি বলেছেন, ‘এক জায়গায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। সেটা হলো: শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন নয়। যারা শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে যাবেন, তারা নিজেদের রাজনৈতিক মৃত্যু ডেকে আনবেন। রাজনৈতিক মৃত্যুর চেয়ে শারীরিক মৃত্যু অনেক শ্রেয়।’

 মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। ‘আকাঙ্ক্ষিত বাংলাদেশ: বাস্তবতা ও করণীয়’ শীর্ষক এ সভার আয়োজন করে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি)। তিনি বলেন, ‘কোনোভাবে যদি এ সরকার আপনাকে আমাকে আবার নির্বাচনে নিতে পারে, তাহলে মোটামুটি কেল্লাফতে। কাজেই যারা এটা করবেন, তারা জনগণের সঙ্গে বেইমানি করবেন।’

নির্বাচনের আগে একটা অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের দাবি জানিয়ে জোনায়েদ সাকি বলেন, ‘অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের নাম কী হবে, তা নিয়ে অনেক বিতর্ক চলছে। এ বিতর্কে সুবিধা সরকারকে করে দেওয়ার প্রয়োজন নেই।’সরকারবিরোধী সব নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘সরকার আমাদের কাছে রূপরেখা চাইবে। আমরা বলবো—আপনি আগে পদত্যাগ করুন, তারপর রূপরেখা দেবো। ১৯৯০ সালে এরশাদের পতনের পর ফয়সালা হয়েছে, তারপরে রূপরেখা এসেছে।’

সাকি বলেন, ‘যদি বাংলাদেশের সংবিধান সংস্কারসহ জবাবদিহিতাপূর্ণ রাজনৈতিক ব্যবস্থা এবং ক্ষমতা কাঠামোর রূপরেখা আমরা মানুষের সামনে হাজির করতে না পারি, তাহলে বাংলাদেশের মানুষ কোনো রাজনৈতিক উত্থানের জন্য প্রস্তুত হবে না।’

বিএনপিকে সর্তক করে তিনি বলেন, ‘বিএনপির একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং বাংলাদেশের প্রধান বৃহৎ রাজনৈতিক দল। তাদের এ ধরনের রাজনৈতিক বন্দোবস্ত ব্যাপারে ঐক্যমত্যে আসতে হবে। যদি তারা সেটা না করে জনগণের উত্থান ঘটাবেন বলে ভাবছেন। তাহলে বলবো—তারা ভুল জায়গায় আছেন।’

জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রবের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন গণফোরাম নেতা অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না, জেএসডি কার্যকরী সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. সিরাজ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ছানোয়ার হোসেন তালুকদার, ভাসানী অনুসারী পরিষদের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নঈম জাহাঙ্গীর, রাষ্ট্রসংস্কার আন্দোলনের অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম প্রমুখ।

Back to top button