বিএনপি থেকে বহিষ্কারের পর মুখ খুলেন তৈমূর

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে বিএনপি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।  মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বহিষ্কারের ঘোষণা দেওয়া হয়। একই দিন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ টি এম কামালকেও বহিষ্কার করা হয়।

বহিষ্কারের পর বিষয়টি নিযে কথা বলেছেন তৈমূর আলম খন্দকার।বুধবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে নগরীর মাসদাইর এলাকায় নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

তৈমূর বলেন, মহাসচিব ঘোষণা দিলেন, দল স্থানীয় সরকার নির্বাচনে যাবে না, কেউ যদি ইচ্ছাকৃতভাবে যেতে চায়, যেতে পারবে। আমি নারায়ণগঞ্জের খেটে খাওয়া মানুষের পক্ষে কাজ করি। আমি যখন ভোটে গেলাম, দল থেকে কেউ আমাকে টেলিফোন করে বা চিঠি দিয়ে বলেনি যে, নির্বাচনে যাওয়া যাবে না।

তিনি বলেন, আমি মনে করি রাজনীতি করতে গেলে একটা দল থাকতে হয়। পদ-পদবি দরকার হয় না। আমার প্রতি দলের এই সিদ্ধান্ত কেউ আমাকে টেলিফোনে বা চিঠিতে জানায়নি। তবে আমি দলের সিদ্ধান্ত নেমে নিলাম। আমাকে পদ থেকে বহিষ্কার করেছে, কর্মী থেকে তো করেনি। পদ থেকে বহিষ্কার করলেও দলের কর্মী-সমর্থক হিসেবে কাজ করে যাবো। আমি খেটে খাওয়া মানুষের পক্ষে থাকবো। অন্য কোন প্লাটফর্মে যাবো না।

দলের এই সিদ্ধান্তে কারো প্রতি কোন ক্ষোভ নেই বলেও জানান তৈমূর আলম খন্দকার। তিনি আরও বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য এবং ইভিএম’র বিরুদ্ধে গণআন্দোলন গড়ে তুলব। জনগণের অধিকার নিয়ে রাজনীতি করে যাবো। তিনি বলেন, অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহ্বান থাকবে; আপনারা কেউ ইভিএম মেনে নেবেন না। এটা ভোট ডাকাতের বাক্স।

Back to top button