খারাপ সময় আসতে চলেছে বুঝবেন কিভাবে? দুঃসময়ের ইঙ্গিত দেয় তুলসী, জানুন বিস্তারিত

সব হিন্দু বাড়িতেই তুলসী গাছের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। এই তুলসী গাছকে খুবই শুভ বলে মনে করা হয়। এই তুলসী গাছ আগে থেকেই জানান দেয় আপনার কোনো সমস্যা আসছে কিনা। যত্ন নেওয়া তুলসী গাছটিও তখন শুকিয়ে যায়। যেসব বাড়িতে ঝগড়া, অশান্তি, অর্থনৈতিক সমস্যা থাকে সেখানে মা লক্ষী বসবাস করতে পারেন না। যে কারনে তিনি সেই স্থান ত্যাগ করেন। আর তাই তুলসী গাছ শুকিয়ে যায়।

জ্যোতিষ শাস্ত্রমতে বুধ গ্রহর কারণে এগুলি হয়ে থাকে। বুধ গ্রহ সবুজ রঙের উপরে প্রভাব ফেলে। যে কারণের গাছ-গাছালির কারক গ্রহ বলা হয় বুধকে। শুধু তাই নয়, যে কোনো গ্রহ যদি খুব ভালো ফল দেয় আপনার জীবনে তাহলে দেখবেন তুলসী গাছের শুভ প্রভাব ক্রমশ বাড়তে থাকে। চলুন তাহলে আজ দেখে নেওয়া যাক তুলসী গাছের বিভিন্ন ধরণের উপকারিতা যা আপনাদের জীবনে দারুন পরিবর্তন নিয়ে আসবে।
১] হাঁপানি বা শাসকষ্টের মতো সমস্যা থাকলে দিনে একবার তুলসী গাছের সামনে বসে থাকুন। দেখবেন দারুন উপকার পাওয়া যাবে।

২] ডায়াবেটিস, রক্তের ব্যাধি, পিত্ত, গ্যাসের মতো সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে চারটি তুলসী পাতা খান। কয়েকদিনের মধ্যেই ফলাফল দেখতে পাবেন।

৩] কথায় আছে তুলসী নিজের মায়ের মতো সুখ দেয়, তাই বাস্তুশাস্ত্রে এর ব্যবহার অপরিহার্য।

৪] ১০-১৫টি তুলসী পাতার রস বের করে নিন। শিশুদের জ্বর, সর্দি-কাঁশি হলে খাওয়ান। দেখবেন ওষুদের থেকেও দারুন উপকার হবে এটি খেলে।
৫] ব্যবসায় উন্নতি ও লাভের মুখ দেখতে চাইলে অতি অবশ্যই প্রতি শুক্রবার সকালে বাড়ির দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে রাখা তুলসী গাছে ভালোকরে কাঁচা দুধ নিবেদন করুন। বিবাহিত মহিলাকে মিষ্টি নিদেবন করলেই দেখবেন ব্যবসায় দারুন উন্নতি হবে।

৬] বাস্তু দোষ আছে?
অতি অবশ্যই তুলসী গাছ গুলি অগ্নিকোনে অর্থাৎ দক্ষিণ-পূর্ব থেকে বায়ু উত্তর-পশ্চিম দিকে খোলা জায়গায় লাগান। এতে সব ধরণের বাস্তু দোষ চলে যাবে।

৭] পারিবারিক বিবাদ দূর করার জন্য তুলসী গাছের পাত্র রান্নাঘরের কাছে রাখা উচিত। অন্যদিকে, মেয়ের বিয়ে হতে দেরি হলে অগ্নিকোনে রাখা তুলসী গাছে প্রতিদিন জল নিবেদন করতে বলুন মেয়েকে। কয়েকদিনের মধ্যেই ভালো খবর আসবে।
তাহলে আজই নিজের বাড়িতে তুলসী গাছ লাগান ও যত্ন নিন। প্রতিদিন এই গাছের যত্ন কিন্তু আপনার ভাগ্য ফিরিয়ে দিতে পারে। তার সাথেই ঘরে সবসময় সুখ-শান্তি থাকবে।

Back to top button