স্বামীর সহায়তায় বন্ধুরা গণধর্ষণ করল গৃহবধূকে, কলকাতার বুকে তীব্র চাঞ্চল্য

গণধর্ষণের মামলা দায়ের করা হয় তাঁর স্বামী–সহ বন্ধুদের বিরুদ্ধে। তাদেরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
স্বামী ও তার বন্ধুদের পক্ষ থেকে গণধর্ষণের শিকার হলেন এক গৃহবধূ। অভিযোগ, নির্যাতিতার স্বামীই এই ঘটনার মূল কারিগর। টাকার বিনিময় বন্ধুদের হাতে নিজের স্ত্রীকে তুলে দেয় সে। তারপর শুরু হয় পাশবিক নির্যাতন। শুনতে অবাক লাগলেও এই ঘটনা ঘটেছে কলকাতার কাশীপুর এলাকায়। অবশেষে ওই নির্যাতিতা গৃহবধূ কোনওরকমে সেখান থেকে বেরিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন কাশিপুর থানায়। গণধর্ষণের মামলা দায়ের করা হয় তাঁর স্বামী–সহ বন্ধুদের বিরুদ্ধে। তাদেরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, রাতে মদ্যপ অবস্থায় ওই তিনজন এই গণধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ। নির্যাতিতা ওই গৃহবধূ শারীরিকভাবে অসুস্থ ছিলেন। তাই চিকিৎসার জন্য বিহার থেকে কয়েকদিন আগে কলকাতায় আসেন। আর এই পরিবার কাশীপুরের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। দু’‌বছর আগে বিয়ে হয়েছিল এই গৃহবধূর। এবার এখানে আসতেই স্ত্রীকে বন্ধুদের হাতে তুলে দেয় স্বামী বলে অভিযোগ।

নির্যাতিতা গৃহবধূর অভিযোগ ঠিক কী?‌ এই ঘটনা নিয়ে থানায় দেওয়া বয়ান অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার রাতে বাড়িতে মদ্যপানের আসর বসে। মদ্যপান চলাকালীন স্বামী জোর করে সেখানে বসতে বলে। যা গৃহবধূ শোনেননি। তখন সেখানে একটি টাকার লেনদেন হয়। তারপর স্বামীর উপস্থিতিতেই মদ্যপ বন্ধুরা মিলে গণধর্ষণ করে। এই কাজে সাহায্য করে স্বামী। এই গণধর্ষণের ঘটনায় অসুস্থ হয়ে পড়েন ওই তরুণী। তখনই বিষয়টি জানাজানি হয়।

উল্লেখ্য, এই বছরের জানুয়ারি মাসে কলকাতায় মূক ও বধির এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছিল। একটি ট্যাক্সিতে তুলে ধর্ষণ করা হয় ওই তরুণীকে। রুবি এলাকায় কাজ করতেন বারুইপুরের বাসিন্দা ওই তরুণী। রুবি থেকে পাকসার্কাস যাওয়ার সময়ই অভিযুক্ত তাঁকে হাত ধরে টেনে গাড়িতে তোলে। তারপর অন্ধকার জায়গায় নিয়ে গিয়ে গাড়ির মধ্যেই মূক ও বধির তরুণীকে ধর্ষণ করে অভিযুক্ত। এই ঘটনায় অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

Back to top button