পুলিশ পাহারায় আ.লীগের সভা

জয়পুরহাট জেলা আওয়ামী লীগের একটি সভা পুলিশি পাহারার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিবাদমান দুটি গ্রুপের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার আশঙ্কায় দলীয় কার্যালয় ও তার আশপাশে বিপুলসংখ্যক অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। তবে শেষ পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

জয়পুরহাট শহরের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানের সামনে জেলা আ.লীগের দলীয় কার্যালয়ে রোববার (১৫ মে) বিকেল ৩টায় সভা শুরু হয়ে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত চলে।

জানা গেছে, বিকেল ৩টায় জয়পুরহাট জেলা আ.লীগের সভাপতি আরিফুর রহমান ওরফে রকেটের সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে জয়পুরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. সামছুল আলম দুদু, জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন মন্ডলসহ জেলা কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। গত ১১ মে জয়পুরহাট পৌর কমিউনিটি সেন্টারে জয়পুরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. সামছুল আলম দুদুর আয়োজিত ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে জেলা আ.লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহফুজ চৌধুরী জয়পুরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য, বাংলাদেশ আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপনকে নিয়ে অশোভন বক্তব্য দিয়েছিলেন। এ ঘটনায় হুইপের নির্বাচনী এলাকা আক্কেলপুর-কালাই-ক্ষেতলাল উপজেলা আ.লীগ জরুরি সভা ডেকে গোলাম মাহফুজ চৌধুরীকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবি জানায়।

রোববারের সভায় গোলাম মাহফুজ চৌধুরীকে দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে এমন আশঙ্কা করছিলেন নেতাকর্মীরা। এ কারণে দুটি গ্রুপের নেতাকর্মীরা তাদের দলবল নিয়ে সভায় যোগদান করেন।

এ নিয়ে জেলা আ.লীগের দলীয় কার্যালয়ের আশপাশে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। দুই গ্রুপের মধ্য অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার আশঙ্কায় দলীয় কার্যালয়ের সামনে কেন্দ্রীয় মসজিদ মার্কেটের বেশিরভাগ দোকানপাট ও পেছনের কিছু দোকানপাট বন্ধ করা হয়। সভা শুরুর আগ থেকেই দলীয় কার্যালয়ের আশপাশে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন ছিল।

সভায় উপস্থিত থাকা কয়েকজন সদস্য জানান, আজকের সভায় বিবিধসহ ছয়টি আলোচ্যসূচি ছিল। বিবিধ আলোচনায় বেশিভাগ সদস্য জেলা আ.লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহফুজ চৌধুরী হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন সর্ম্পকে অশোভন বক্তব্য দেওয়ার বিষয়টি উঠে আসে। তারা দল থেকে গোলাম মাহফুজ চৌধুরীকে বহিষ্কারের দাবি জানান। গোলাম মাহফুজ চৌধুরীর বিরুদ্ধে গঠনতন্ত্র মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

জয়পুরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আলমগীর জাহান বলেন, দলীয় সভাকে ঘিরে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে একারণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। শেষ পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

Back to top button