চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের দুর্ঘনাটি ইচ্ছাকৃত

চলতি বছরের মার্চে চীনের চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের বিমানটি ইচ্ছাকৃতভাবে বিধ্বস্ত করা হয়েছিলো। বুধবার (১৮ মে) বিমান বিধ্বস্তের ওই ঘটনায় প্রাথমিক তদন্তে সংশ্লিষ্ট মার্কিন কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে প্রকাশিত প্রতিবেদনের বরাতে এই খবর জানিয়েছে এনডিটিভি।

পশ্চিমা ওই কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, প্রাথমিক তদন্তে বিমানটির যান্ত্রিক কোনো ত্রুটি খুঁজে না পাওয়ায় ক্রু সদস্যদের কর্মকাণ্ডের ওপর মনোযোগ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে ওই বিমানের নির্মাণ প্রতিষ্ঠান বোয়িং কোম্পানি এই ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। কোম্পানিটি চীনা নিয়ন্ত্রকদের কাছে এই ব্যাপারে প্রশ্ন করতে বলেছে। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ট্রান্সপোর্টেশন সেইফটি বোর্ড (এনটিএসবি) তাৎক্ষণিকভাবে কোনো মন্তব্য করেনি।

প্রসঙ্গত, গত মার্চে বোয়িং ৭৩৭-৮০০ মডেলের বিমানটি চীনের কুনমিং থেকে গুয়াংজুতে যাওয়ার পথে বিধ্বস্ত হয়। বিমানটি ক্রুজিং অ্যালটিটিউড (বিমান চলার আদর্শ উচ্চতা) থেকে হঠাৎই নিচের দিকে পড়ে গুয়াংজির পাহাড়ে বিধ্বস্ত হয়। এতে বিমানে থাকা ১২৩ যাত্রী এবং ৯ ক্রু সদস্যসহ সবাই নিহত হন।

বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার পর চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্স বোয়িংয়ের একই মডেলের বিমান ব্যবহার বন্ধ করে দেয়। পরে এপ্রিলের মাঝামাঝিতে পুনরায় ব্যবহার শুরু করে। গত মাসে চীনের নিয়ন্ত্রকরা ওই বিমান দুর্ঘটনার ব্যাপারে প্রাথমিক সারসংক্ষেপ প্রকাশ করে। তবে সেখানে বিমানটির কোনো যান্ত্রিক ত্রুটির কথা উল্লেখ করা হয়নি।

বিশেষজ্ঞদের মতে, শক্তিশালী নিরাপত্তা রেকর্ডসহ এই মডেলের বিমানটি ১৯৯৭ সাল থেকে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/এসএম

Back to top button