রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক রূপান্তরের সংগ্রাম প্রধান কর্তব্য: জোনায়েদ সাকি

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেছেন, রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক রূপান্তর ছাড়া জনগণের ভোটাধিকার ও নাগরিকদের ন্যূনতম অধিকার বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। আমরা জনগণের ভোটাধিকার ও রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক রূপান্তরের সংগ্রাম বেগবান করতে জনগণের বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলার সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। এই সংগ্রামই এ সময়ের প্রধান রাজনৈতিক কর্তব্য।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর হাতিরপুলে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গণসংহতি আন্দোলনের প্রথম নির্বাহী সমন্বয়কারী বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আবদুস সালামের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় জোনায়েদ সাকি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আবদুস সালাম কিশোর বয়স থেকে আমৃত্যু মানুষের মুক্তির সংগ্রামে নিয়োজিত ছিলেন। সমাজের গণতান্ত্রিক রূপান্তরের পথ অনুসন্ধান করার কাজে আমৃত্যু আপসহীন থেকেছেন তিনি। এর আগে জোনায়েদ সাকির নেতৃত্বে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা আবদুস সালামের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান।

পরে একে একে শ্রদ্ধা জানান বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার, সিপিবির সাধারণ সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স, বাসদের সাধারণ সম্পাদক বজলুর রশীদ ফিরোজ, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, নাগরিক ঐক্যের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল্লাহ কায়সার, বাসদের (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় নেতা মানস নন্দী, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুর রহমান, ওয়ার্কার্স পার্টির (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় নেতা বিধান দাস, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের কেন্দ্রীয় নেতা নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

আরও শ্রদ্ধা জানান গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতি, বহুমুখী শ্রমজীবী ও হকার সমিতি, নারী সংহতি, কৃষক-মজুর সংহতি এবং ছাত্র ফেডারেশনসহ বিভিন্ন বাম-প্রগতিশীল দল ও সংগঠনের নেতারা। অনুষ্ঠানের শুরুতে অ্যাডভোকেট আবদুস সালামের রাজনৈতিক সংগ্রাম ও চিন্তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেন গণসংহতি আন্দোলনের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য জুলহাস নাইন বাবু।

Back to top button