আনচেলত্তির রেকর্ড

‘রিয়ালেরও প্রতিশোধ নেয়ার আছে। তারাও প্যারিসে লিভারপুলের বিপক্ষে ফাইনালে হেরেছিল।’- চ্যাম্পিয়নস লীগ ফাইনালের আগে কথাগুলো বলেছিলেন রিয়াল মাদ্রিদ কোচ কার্লো আনচেলত্তি। লিভারপুলের দুর্গ ভেঙে শনিবার রাতে ১৯৮১ সালের পুরনো হিসেব মিটিয়েছে ইতালিয়ান কোচের দল। রিয়ালের প্রতিশোধ নেয়ার ম্যাচে অনন্য অর্জন হয়েছে আনচেলত্তিরও। ফুটবল ইতিহাসে প্রথম কোচ হিসেবে ৪টি চ্যাম্পিয়নস লীগ জেতার কীর্তি গড়লেন তিনি।

শনিবার রাতে সালাহ মানেদের মুহুর্মুহু আক্রমণের বিপরীতে দেয়াল হয়ে ওঠেন থিবো কোর্তোয়া। অন্যদিকে কাউন্টার অ্যাটাকে ভিনিসিয়ুস জুনিয়রের দুর্দান্ত গোল। সব মিলিয়ে আধিপত্য লিভারপুলের হলেও শিরোপায় চুমু এঁকেছে লস ব্লাঙ্কোরা। এ নিয়ে রিয়াল মাদ্রিদের ১৪ চ্যাম্পিয়নস লীগ শিরোপার দুটি এসেছে কার্লো আনচেলত্তির কোচিংয়ে। এবারের আগে ২০১৪ সালে প্রথম দফায় কোচিং করানোর সময় স্প্যানিশ জায়ান্টদের ইউরোপ সেরা করেন। এসি মিলানের ডাগআউট সামলে ২০০৩ সালে প্রথম চ্যাম্পিয়নস লীগ শিরোপা জেতার স্বাদ পান আনচেলত্তি। একই দলের হয়ে নিজের দ্বিতীয় শিরোপা অর্জন করেন ২০০৭ সালে। প্রথম কোচ হিসেবে একাধিক ক্লাবের হয়ে দুটি করে চ্যাম্পিয়নস লীগ জয়ের কীর্তি গড়লেন আনচেলত্তি। এবারের আগে আনচেলত্তির সঙ্গে সর্বাধিক তিনটি করে চ্যাম্পিয়নস লীগ শিরোপা জয়ী ছিলেন রিয়ালের সাবেক কোচ জিনেদিন জিদান ও লিভারপুলের সাবেক কোচ বব পেইজলি। রিয়াল মাদ্রিদকে ২০১৬, ২০১৭ এবং ২০১৮ সালে ইউরোপ সেরা করেছিলেন জিদান। আর ১৯৭৭, ১৯৭৮ এবং ১৯৮১ সালে লিভারপুলকে শিরোপা এনে দেন প্রয়াত পেইজলি।

রেকর্ড গড়ে বেজায় খুশি আনচেলত্তি। তিনি বলেন, ‘আমি একজন রেকর্ড গড়া মানুষ। গত বছর এই দলে ফেরার সুযোগ হয়েছিল। দারুণ একটা মৌসুম কাটালাম। রিয়াল চমৎকার একটি ক্লাব এবং উঁচু মানের ও শক্ত মানসিকতার খেলোয়াড় রয়েছে দলটির। ইউরোপ সেরার মুকুট পেরে অবিশ্বাস্য লাগছে আনচেলত্তির। ম্যাচ শেষে রিয়ালের ৬২ বছর বয়সী কোচ বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করতে পারছি না। কঠিন একটা ম্যাচ ছিল। প্রথমার্ধে আমরা ভুগেছিলাম, কিন্তু শেষ পর্যন্ত (আমরা জিতেছি)… এবারে যে ম্যাচগুলো আমরা খেলেছি, আমি মনে করি, এ প্রতিযোগিতায় জয়ী হওয়ার যোগ্য আমরা।’
আনচেলত্তি বলেন, ‘আমরা খুব খুশি। আর কী-ই বা বলতে পারি। এর বেশি কিছু বলার নেই।

ইউরোপ সেরা হলেও ফাইনালে পৌঁছার পথটা সহজ ছিল না রিয়াল মাদ্রিদের। পিএসজি, ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে হারের শঙ্কায় থেকেও অবিশ্বাস্য সব প্রত্যাবর্তন ঘটিয়েছে করিম বেনজেমা, ভিনিসিয়ুস জুনিয়ররা। আনচেলত্তি বলেন, ‘আসলেই কঠিন সব ম্যাচ পার করে এসেছি আমরা। আগের ম্যাচে সমর্থকরা আমাদের খুবই সাহায্য করেছিল। আজ রাতেও তারা সাহায্য করেছে। আমরা খুশি এবং তারাও।’

Back to top button