২০২২ সালে বরফ গলে বেরিয়ে আসবে ভয়ংকর ভাইরাস

১২ বছর বয়স পর্যন্ত স্বাভাবিক মানুষের মতোই বেড়ে উঠেছিলেন বাবা ভাঙ্গা। কিন্তু সে সময়ই ঘটে এক বিপত্তি। প্রলয়ংকরী এক ঘূর্ণিঝড়ের পর রহস্যজনকভাবে দৃষ্টিশক্তি হারান তিনি।

নিউ ইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড়ের কয়েক দিন পর মুমূর্ষু অবস্থায় কিশোরী বাবা ভাঙ্গার খোঁজ পায় তার পরিবার। মারাত্মক আঘাতে তার চোখ দুটি নষ্ট হয়ে গিয়েছিল।

পরবর্তী সময়ে বাবা ভাঙ্গা দাবি করেন, নিখোঁজ থাকার সময়টিতে একটি আধ্যাত্মিক শক্তির দেখা পেয়েছেন তিনি। যার মাধ্যমে ভবিষ্যৎ দেখা যায়। এ ছাড়া মানুষের রোগ নিরাময়ের ক্ষমতা অর্জনেরও দাবি করেন তিনি।

দাবি করা হয়, এখন পর্যন্ত বাবা ভাঙ্গা যত ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন তার ৮৫ ভাগই মিলে গেছে। এর মধ্যে ২০০০ সালে কুরস্ক পারমাণবিক সাবমেরিন দুর্ঘটনা, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আইএস জঙ্গিদের উত্থান, সিরিয়ার রাসায়নিক হামলা, ব্রেক্সিট, আমেরিকার প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট, নাইন ইলেভেন হামলার মতো ঘটনাগুলোর ইঙ্গিত বহু আগেই দিয়েছিলেন তিনি।

বাবা ভাঙ্গার ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী, নতুন বছর ২০২২ সালেও বেশ কিছু আলোচিত ঘটনা ঘটবে পৃথিবীতে। এমনকি সদ্য শেষ হতে যাওয়া মহামারিগ্রস্ত ২০২১ সালের তুলনায় ২০২২ সালটি আরও নাটকীয় হতে পারে বলেই ইঙ্গিত রয়েছে।

বাবা ভাঙ্গার ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী ২০২২ সালে পৃথিবীতে যেসব ঘটনা ঘটতে পারে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- নতুন বছরে পুরো পৃথিবীতেই কর্তৃত্ব করবে ভার্চুয়াল রিয়ালিটি।

২০২২ সালে আরেকটি মহামারির মুখোমুখি হতে পারে পৃথিবীর মানুষ। বাবা ভাঙ্গার মতে এই ভাইরাসটির সূত্রপাত হবে সাইবেরিয়া থেকে। আর জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বরফ গলে যাওয়ার কারণেই বেরিয়ে আসবে লাখো বছরের পুরোনো সেই ভাইরাস।

নতুন বছরে পৃথিবীর বিভিন্ন শহরে পানিস্বল্পতাও তীব্র আকার ধারণ করতে পারে। এই পানিস্বল্পতার ফলে বৈশ্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতিও ঘোলাটে হতে পারে।

একটি গ্রহাণু আছড়ে পড়ার মাধ্যমে নতুন বছরে পৃথিবীতে এলিয়েনদেরও আগমন ঘটতে পারে।

২০২২ সালে ভারতে একটি দুর্ভিক্ষেরও ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন বাবা ভাঙ্গা। আর এটা হতে পারে তাপমাত্রা কমে গিয়ে ফসলের ওপর প্রভাব পড়ার মধ্য দিয়ে। দেশটির ফসলি জমিগুলোতে পঙ্গপালের আক্রমণও হতে পারে।

এ ছাড়া নতুন বছরটিতে আরও বেশি হারে ভূমিকম্প ও সুনামির আশঙ্কা রয়েছে। বাবা ভাঙ্গার ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী, অস্ট্রেলিয়া ও এশিয়ার কিছু অঞ্চলে তীব্র বন্যা আঘাত হানতে পারে।

২৫ বছর আগে বাবা ভাঙ্গা মারা গেলেও তার বিভিন্ন ভবিষ্যদ্বাণীর ওপর এখনও অসংখ্য মানুষ আস্থা রাখেন।

বাবা ভাঙ্গার অন্যান্য ভবিষ্যদ্বাণীর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- ২০২৫ থেকে ২০২৮ সালের মধ্যে দূর হবে বৈশ্বিক ক্ষুধা। সুপার পাওয়ার হিসেবে আমেরিকাকে ছাড়িয়ে যাবে চীন।

এ ছাড়া ক্লোনিং টেকনোলজির মাধ্যমে ভবিষ্যতে চিকিৎসকরা যেকোনো রোগ সারাতে পারবেন।

মঙ্গল গ্রহে মানুষের বসতি স্থাপন নিয়েও ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন তিনি। তার মতে, পৃথিবী ধ্বংস হবে ৫০৭৯ সালে।

Back to top button