প্রথমবারেই বাজিমাত, আইপিএল চ্যাম্পিয়ন গুজরাট

প্রথমবারেই বাজিমাত, আইপিএল চ্যাম্পিয়ন গুজরাট

ম্যাচ শেষের আগের ওভারেও ধারাভাষ্যকাররা বলছিলেন, আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে এখন ১ লাখ ৪ হাজার দর্শক রয়েছেন। সুবিশাল স্টেডিয়ামে ক্রিকেটানুরাগীরা ভিড় জমিয়েছেন বটে। তবে রোববার রাতে টি- টোয়েন্টির পূর্ণ বিনোদন নিয়ে বাসায় ফিরতে পারেননি। কারণ আইপিএলের ১৫তম আসরের মেগা ফাইনালটা কার্যত এক তরফা হয়েছে। লো স্কোরিংয়ের কারণে নিষ্প্রাণও বলা যায়।

এমন ম্যাড়ম্যাড়ে ম্যাচেই আইপিএল শিরোপা জিতে গেছে গুজরাট টাইটান্স। টুর্নামেন্টে প্রথমবার অংশ নিয়েই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করলো নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজিটি। ফাইনালে রাজস্থান রয়্যালসকে ৭ উইকেটে পরাজিত করেছে গুজরাট।বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই ফ্র্যাঞ্চাইজ টি-টোয়েন্টি লিগের প্রথম আসরে ট্রফি জিতেছিল রাজস্থান। ২০০৮ সালের পর এবার আবারও ফাইনালে উঠেছিল দলটি। কিন্তু তাদের ফিরতে হয়েছে ট্রফি না জিতেই। ম্যাচে টি-টোয়েন্টির ঝাঁঝ ছিল না বললেই চলে। আগে ব্যাট করে রাজস্থান ৯ উইকেটে ১৩০ রান করেছিল। ১১ বল বাকি থাকতে যা টপকে গেছে গুজরাট। ১৮.১ ওভারে ৩ উইকেটে ১৩৩ রান তুলে জয় নিশ্চিত করে হার্দিক পান্ডিয়ার দল।

গুজরাটের অধিনায়ক এই পেস বোলিং অলরাউন্ডারই ফাইনালে ব্যবধান গড়ে দিয়েছেন। টসে হেরে বোলিং করতে নেমে পান্ডিয়া ১৭ রানে ৩ উইকেট নেন। তার শিকার রাজস্থানের তিন ব্যাটিং স্তম্ভ জস বাটলার, সাঞ্জু স্যামসন ও শিমরন হেটামায়ার। পরে ব্যাটিংয়ে নেমে ৩০ বলে ৩৪ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছেন। ২৩ রানে ২ উইকেট পতনের পর শুবমান গিলের সঙ্গে ম্যাচজয়ী ৬৩ রানের জুটি গড়েছেন তিনি। ইনিংসের শুরু যেমনই হোক মাঝের ওভারগুলো থেকেই গুজরাটের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে চাপে পড়ে রাজস্থান। শেষ পর্যস্ত স্কোরটা তাই বড় হয়নি। বাটলার ৩৯, জয়ওয়াল ২২, স্যামসন ১৪, হেটমায়ার ১১, পরাগ ১৫, ট্রেন্ট বোল্ট ১১ রান করেন। গুজরাটের সাই কিশোর ২টি, রশিদ খান, যশ দয়াল ও শামি ১টি করে উইকেট নেন।

জবাবে গুজরাটের হয়ে একপ্রান্ত আগলে খেলেছেন ওপেনার শুভমান গিল। তিনি ৪৫ রানে অপরাজিত ছিলেন। পান্ডিয়া আউট হওয়ার পর ডেভিড মিলার ও গিলের ৪৭ রানের জুটি নিশ্চিত করে দেয় গুজরাটের জয়। মিলার ১৯ বলে ৩২ রান করে অপরাজিত ছিলেন। রাজস্থানের বোল্ট, কৃষ্ণা ও চাহাল ১টি করে উইকেট পান।

Back to top button