ইমরানের অভিযোগ: ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছে পাকিস্তান

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও পিটিআই চেয়ারম্যান ইমরান খান ক্ষমতাসীন জোট সরকারের সমালোচনা করে বলেছেন, ইসলামাবাদ এবার ইসরাইলকে স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছে। ইসরায়েলি প্রেসিডেন্ট আইজ্যাক হারজোগ এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের একটি প্রতিনিধি দলের সাথে বৈঠকের কথা ঘোষণা করার পর তিনি এ কথা বলেন।

গতকাল রোববার খাইবার পাখতুনখোয়ার চরসাদ্দায় পিটিআই কর্মীদের সম্মেলনে ভাষণ দেওয়ার সময় ইমরান খান বলেন, নতুন পাকিস্তান সরকার ইসরায়েলকে মেনে নিতে প্রস্তুত। কারণ ওয়াশিংটন যা বলবে, এরা তা-ই করবে। এই সরকার কাশ্মিরের জনগণকে বিক্রি করার জন্য ভারতের সাথে একটি চুক্তি করবে এবং এক পর্যায়ে ইসরায়েলকেও মেনে নেবে।ইসরায়েলি প্রেসিডেন্ট আইজ্যাক হারজোগ সম্প্রতি এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, কয়েক সপ্তাহ আগে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী পাকিস্তানি প্রবাসীদের একটি প্রতিনিধি দলের সাথে তার সাক্ষাত হয়েছে, তবে তিনি সদস্যদের পরিচয় প্রকাশ করেননি। ডাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামে বক্তৃতা দিতে গিয়ে ইসরায়েলের প্রেসিডেন্ট এ কথা বলেন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তেল আবিবে একটি পাকিস্তানি প্রতিনিধি দলের সফরের ছবি দেখা যাচ্ছে। সেখানে পাকিস্তানের রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশনের একজন কর্মচারীকেও সফরকারী দলের অংশ হিসেবে দেখা যায়। পাকিস্তানের একজন সরকারি কর্মকর্তা অবশ্য দাবি করেন, পাকিস্তানের কোনো সরকারি বা আধা-সরকারি প্রতিনিধি দল ইসরায়েলি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করেনি।

জোট সরকারের চরম সমালোচনা করে ইমরান খান বলেন, এই সরকার তাকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য আমেরিকার সাথে ষড়যন্ত্র করেছিল। পাকিস্তানের জনগণ কখনো তাদের ওপর চাপিয়ে দেওয়া এই সরকার মেনে নেবে না। আমরা এই চোর এবং যুক্তরাষ্ট্রের দাসদের মেনে নেব না। যারা দেশ লুট করছে, পিটিআই তাদের বিরুদ্ধে প্রকৃত মুক্তিযুদ্ধ করছে দাবি করে খান বলেন, যতদিন আমি বেঁচে আছি, আমি এই চোরদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম এবং জিহাদ শেষ করব না। সুপ্রিম কোর্ট পিটিআইকে গণতান্ত্রিক অধিকার হিসেবে শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করার অনুমতি দিয়েছে কিন্তু সরকার এক্ষেত্রেও নাশকতার চেষ্টা করেছিল। পাকিস্তান আনুষ্ঠানিকভাবে ইসরায়েল-ফিলিস্তিনি বিরোধের দ্বি-রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানকে সমর্থন করে এবং ১৯৬৭-এর পূর্বের সীমানার মধ্যে পূর্ব জেরুজালেমকে রাজধানী শহর হিসাবে একটি স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত না হওয়া পর্যন্ত ইসরায়েলকে স্বীকৃতি না দেওয়ার নীতি অবলম্বন করছে।

Back to top button