মা , টাকার অভাবে ছেলেকে চিকিৎসা করাতে পারছেন না

সন্তানকে হাফেজ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার স্বপ্ন কি অধরাই থেকে যাবে অসহায় মা লাইলী বেগমের? হঠাৎ ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয় মাগুরা সদরের ডেফুলিয়া মাদ্রাসার ছাত্র নাইম (১৩)। সন্তানকে নিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়ছেন স্বামী পরিত্যক্তা হতদরিদ্র চাতাল শ্রমিক মা লাইলী। মাগুরা সদর হাসপাতালে অচেতন হাড্ডিসার সন্তানকে বুকে চেপে উন্নত চিকিৎসার জন্য কোথায় যাবেন, কার কাছে যাবেন ভেবে এখন কুল পাচ্ছেন না তিনি। বর্তমানে মাগুরা সদর হাসপাতালের পুরুষ মেডিসিন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন মো. নাইম। তার মা লাইলী বেগম জানান- গত রোজার দ্বিতীয় দিনে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে নাইম। প্রচণ্ড জ্বরসহ বেশকিছু উপসর্গ নিয়ে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিতে শুরু করে। এর কিছুদিন পর হঠাৎ পাগলের মতো আচরণ শুরু করে সে। এ সময় তাকে পরীক্ষা করলে চিকিৎসকরা জানান তার নিউমোনিয়া জাতীয় রোগ থেকে ব্রেইন স্ট্রোক হয়েছে। এরপর থেকে ক্রমে কিশোর নাইম এর শরীর নিস্তেজ হতে থাকে। কয়েকদিন আগে যশোরের একটি ক্লিনিকে পিজি হাসপাতালের নিউরোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ (সবুজ)কে দেখালে তিনি নাইমকে উন্নত চিকিৎসা দিতে ঢাকা পিজি হাসপাতালে পাঠানোর পরামর্শ দেন।

কিন্তু স্থানীয় একটি চাতালের শ্রমিক হিসেবে ও এলাকার বিভিন্ন মানুষের বাড়িতে কাজ করে সংসার চালানো লাইলী বেগমের সামর্থ্য নেই। এ অবস্থায় তিনি সকলের দোয়া ও সহযোগিতা আশা করেছেন। লাইলী বেগম বলেন, আমার তিনটি সন্তান কোলে রেখে স্বামী আফরোজ মোল্যা নিখোঁজ হয়েছে প্রায় ৮ বছর আগে। এর পর থেকে অনেক সংগ্রাম করে আমি তিনটি ছেলেকে মানুষ করার চেষ্টা করছি। ১৫ বছর বয়সের বড় ছেলেটিও হাফেজি পড়ছে। মেজো ছেলে নাইমকেও হাফেজ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা ছিল আমার স্বপ্ন। কিন্তু হঠাৎ অসুস্থতায় আমি এখন দিশাহারা। সন্তানের জীবন বাঁচানো আমার জন্য দায় হয়ে গেছে। সমাজের হৃদয়বান মানুষরা যদি আমার সন্তানটির সুস্থতার জন্য এগিয়ে আসেন তাহলে আমি সবার কাছে চির কৃতজ্ঞ থাকবো। (লাইলী বেগমের মোবাইল নম্বর- ০১৮৩৪-৫৫৬২০৮

Back to top button