শতবর্ষী কৃষ্ণচূড়া ভেঙে পড়ল সেলুনে, নরসুন্দরের মৃত্যু

জামালপুরের মেলান্দহে একটি সেলুনের টিনের চালে ভেঙে পড়েছে শতবর্ষী কৃষ্ণচূড়া গাছ। এতে প্রাণ হারিয়েছেন সেলুনের মালিক ও নরসুন্দর নিরঞ্জন চন্দ্র দাস (৩৫)। গতকাল শুক্রবার সকালে উপজেলার আদ্রা ইউনিয়নের থুরী কুঠের বাজারে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত নিরঞ্জন উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের খাসিমারা গ্রামের নরেশ চন্দ্র দাসের ছেলে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, বিয়ের পর থেকেই আদ্রা ইউনিয়নের গুজামানিকা গ্রামে শ্বশুরবাড়িতে বসবাস করতেন নিরঞ্জন। স্থানীয় থুরী কুঠের বাজারে রাস্তার পাশে একটি অস্থায়ী টিনের চালাঘর তুলে সেখানে সেলুন দিয়ে সংসার চালাতেন তিনি। স্ত্রী, দুই মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে তার। প্রতিদিনের ন্যায় শুক্রবার সকালেও দোকান খুলে একজন গ্রাহকের চুল কাটার কাজ করছিলেন নিরঞ্জন। এ সময় আরো দু-তিনজন গ্রাহক তার সেলুনে বসে ছিলেন।

সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সেলুনের পাশে থাকা শতবর্ষী কৃষ্ণচূড়া গাছ আকস্মিক ভেঙে পড়ে। তবে এ সময় সেলুনে থাকা তিনজন লোক দ্রুত দৌড়ে বের হতে পারলেও আটকা পড়েন নিরঞ্জন। গাছটি উপড়ে পড়লে সেলুনটি সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন নিরঞ্জন। স্থানীয়রা গাছের নিচ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে।আদ্রা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফরহাদ আলী বলেন, গাছটি ভেঙে পড়ার সময় কোনো ঝড়-বৃষ্টি ছিল না।

গাছচাপায় টিনের ঘরটি ভেঙে গেছে। ঘটনার পরপর গ্রাম পুলিশসহ স্থানীয় লোকজন নিরঞ্জনকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে। তার মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।ইউনিয়ন পরিষদ থেকে এবং স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে নিরঞ্জনের পরিবারকে সহায়তার ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান তিনি।

Back to top button