পকেট গেট তালাবদ্ধ রেখেই পালান নিরাপত্তাকর্মী

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোর আগুনের ঘটনায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৯ জনে। যার মধ্যে ৯ জন ফায়ার সার্ভিসের কর্মী। নিহতদের মধ্যে ১৬ জনের পরিচয় মিলেছে।

এদিকে ডিপোতে বিস্ফোরণের আগে আগুন লাগার সময়ও ডিপোর পকেট গেট বন্ধ ছিল বলে জানিয়েছেন বেঁচে ফেরা কয়েকজন শ্রমিক। তাদের অভিযোগ, ডিপোর দক্ষিণ পাশের পকেট গেটটি তালাবদ্ধ অবস্থায় রেখে পালিয়ে যান নিরাপত্তাকর্মী।

তারা বলেন, ডিপোতে আগুন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দায়িত্বরত শ্রমিকেরা ডিপোর দক্ষিণ পাশের পকেট গেট দিয়ে বের হওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু বাইরে তালা লাগিয়ে গেটের দায়িত্বরত নিরাপত্তাকর্মী পালিয়ে যাওয়ায় আর কোনো শ্রমিক ভেতর থেকে বের হতে পারেননি।

ডিপোর ভেতরে আটকে পড়া শ্রমিকেরা বলেন, বিএম কনটেইনার ডিপোতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অংশে মূল গেট। ডিপোর দক্ষিণ পাশের মাঝামাঝিতে নিরাপত্তা দেয়ালের সঙ্গে আছে ছোট একটি পকেট গেট। এই গেট দিয়ে ডিপোতে কর্মরত কর্মকর্তা ও শ্রমিকেরা খাবার খেতে এবং আবাসিক ভবনে যাতায়াত করেন। এ গেট খোলা রাখার সময় সকাল ৭-৯টা, বেলা ১টা থেকে আড়াইটা ও সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত।

শ্রমিকেরা বলেন, গতকাল শনিবার রাতে ডিপোতে আগুন লাগার সময় গেটের দায়িত্বে ছিলেন বাহার উদ্দিন নামের এক নিরাপত্তাকর্মী। আগুন লাগার পর গেটের বাইরে তালা দিয়ে তিনি পালিয়ে যান। ফলে বিস্ফোরণের আগে এ গেট দিয়ে বাইরে আসার চেষ্টা করেও বের হতে পারেননি শ্রমিকেরা। পরে বিস্ফোরণের বিকট আওয়াজে গেটের দরজা ভেঙে পড়লে সেখান দিয়ে বের হন তারা। কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে যায়।

সূত্র-প্রথম আলো

সোনালীনিউজ/আইএ

Back to top button