জাপানের সঙ্গে চুক্তি স্থগিত রাশিয়ার

কুরিল দ্বীপপুঞ্জে মাছ ধরা নিয়ে জাপানের সঙ্গে চুক্তি স্থগিত করলো রাশিয়া। মস্কোর দাবি, জাপান অর্থ দেয়নি বলে এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বিবৃতি দিয়ে বলেছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে আমরা ১৯৯৮ সালের চুক্তির রূপায়ণ বন্ধ রাখছি। জাপান যতদিন তার আর্থিক দায় না মেটায়, ততদিন পর্যন্ত এই চুক্তি স্থগিত করতে আমরা বাধ্য হচ্ছি। কুরিল নিয়ে বিরোধ অবশ্য দীর্ঘদিনের। রাশিয়ার দাবি, এই দ্বীপপুঞ্জ তাদের। আর জাপানের দাবি, এর মধ্যে চারটি দ্বীপ জাপানের। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় রাশিয়ার সেনা তা দখল করে নেয়।

গত অক্টোবরে জাপানের প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছিলেন, ওই চারটি দ্বীপ তাদের। এই দ্বীপগুলি হোক্কাইডোর উত্তরের জলসীমা থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে। এই দ্বীপগুলির অবস্থানগত গুরুত্ব বিশাল। তাই রাশিয়া কোনোভাবেই জাপানের দাবি মানতে নারাজ। জাপান ও ন্যাটোর কর্মকর্তারা মঙ্গলবার একটি সমঝোতায় পৌঁছেছেন। এই সমঝোতা অনুযায়ী, তারা সামরিক সহযোগিতা বাড়াবেন এবং যৌথ মহড়া করবেন। ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের পর এই পদক্ষেপ নেয়া জরুরি বলে তাদের মত। এরপরই রাশিয়া চুক্তি স্থগিত রাখার কথা ঘোষণা করলো।

জাপান এর আগে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলোর সঙ্গে হাত মিলিয়ে রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। গত মে মাসে জাপানের প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, তারা নীতিগতভাবে রাশিয়া থেকে তেল কেনার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করছেন। তারা পর্যায়ক্রমে রাশিয়া থেকে কয়লা কেনা বন্ধ করবেন।

জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী নোবুও কিশি বলেছেন, তারা ইউরোপীয় দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করবেন। তারা চান, ন্যাটো ইন্দো-প্যাসিফিকে তৎপরতা বাড়াক। মঙ্গলবার সি অফ জাপানে যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানের যুদ্ধবিমানের যৌথ মহড়া হয়েছে।

Back to top button