‘মেসির বক্তৃতার সময় আর্জেন্টিনা প্রেসিডেন্টকেও চুপ থাকতে হবে

ফিনালিসিমার দ্বিতীয়ার্ধে লিওনেল মেসিকে বাজেভাবে ফাউল করেন জিওভানি ডি লরেঞ্জো। সঙ্গে সঙ্গে ইতালিয়ান ডিফেন্ডারকে ঘিরে ফেলে আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়রা। হাতাহাতিও হয়। এমন দৃশ্য প্রায়ই দেখা যায়। মেসিকে ফাউল করলে গোটা একাদশ এক হয়ে প্রতিপক্ষের সঙ্গে ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়ে। মেসি যে আর্জেন্টিনার মধ্যমণি তা বলা বাহুল্য। সতীর্থদের কাছে মেসির গুরুত্ব এতটাই যে, তার বক্তব্যের সময় আর্জেন্টিনা প্রেসিডেন্টকেও চুপ থাকতে হবে বলে মনে করেন এমিলিয়ানো মার্টিনেজ।

২৮ বছরের শিরোপা খরা ঘুচিয়ে কোপা আমেরিকা চ্যাম্পিয়ন হয় আর্জেন্টিনা। ম্যাচের আগে খেলোয়াড়দের উজ্জীবিত করতে ড্রেসিংরুমে বক্তব্য দিয়েছিলেন মেসি। মার্টিনেজ মনে করেন অধিনায়কের সেই বক্তব্য অনুপ্রেরণা যুগিয়েছিল তাদের। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক বলেন, ‘মেসি যখন কথা বলে, সবারই এমন চুপ থাকা উচিত, তা তিনি আর্জেন্টিনার কোচ বা প্রেসিডেন্টই হোন না কেন।

সবাইকে চুপ থাকতে হবে। মার্টিনেজ বলেন, ‘সে (মেসি) বলেছিল, এটাই তার শেষ ম্যাচ এবং নিজের সর্বস্ব বিলিয়ে দেবে সে। তার কথা শুনে আমার গায়ে কাঁপুনি অনুভব করেছিলাম। মেসি কথা বলছিল, সবাই একদম চুপ ছিল।’ এই আর্জেন্টিনা যে মেসির জন্য খেলে তা বোঝা যায় লিয়ান্দ্রো পারেদেসের কথায়ও। পিএসজি মিডফিল্ডার বলেন, বিশ্বকাপ জিতলে নিজের চেয়ে মেসির জন্য বেশি খুশি হবেন তিনি।

পারেদেস বলেন, ‘আমরা যদি বিশ্বকাপ জিততে পারি, তাহলে আমি নিজের চেয়ে মেসির জন্য বেশি খুশি হব। আশা করি, এটা মেসির শেষ বিশ্বকাপ হবে না। আরেকটি বিশ্বকাপ খেলার জন্য আরো চার বছর পার করা যদিও কঠিন।’
দুর্দান্ত ফর্মে থাকা আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপের অন্যতম দাবিদার। কোপা আমেরিকার পর ফিনালিসিমা জয় করেছে আলবেসেলিস্তেরা। দুই শিরোপা জয় এবং বিশ্বকাপ বাছাইয়ের মিশনে টানা ৩২ ম্যাচ অপরাজিত লিওনেল স্কালোনির দল।

Back to top button