স্ত্রী ফূর্তি করে! আমায় দিয়ে বাসন মাজায়, ঘর পরিষ্কার করায়

‘আমি একজন বিবাহিত পুরুষ। আমার বেশিদিন বিয়ে হয়নি। এখনও নেই সন্তান। আমার সমস্যা হল, স্ত্রী (Wife) আমায় কোনও সম্মানই দেয় না। এমনকী আমাদের বিয়ের পর থেকে ও আমাকে দিয়েই ঘরের সমস্ত কাজ করায় (Household Work)। আমার বাড়ির কাজ করতে কোনও সমস্যা নেই। তবে ও কিছুই করে না। শুধু বসে বসে টিভি দেখে।’ ঘটনাটি ভারতের কলকাতার একটি রাজ্যের Relationship Tips-এ পরামর্শ নেয়ার জন্যে বলা, কী করা যায় –

“স্ত্রী ফূর্তি করে! আমায় দিয়ে বাসন মাজায়, ঘর পরিষ্কার করায়” আমারও রয়েছে অফিস। অফিস শেষ করে আমি বাড়ি ফিরি। তারপর বাড়ি ফিরেই একবারে কাজ নিয়ে পড়তে হয়। বাড়ির সব দায়িত্বই যেন আমার। আমাকেই সব কাজ করতে হয়। বাসন মাজা, ঘর পরিষ্কার, রান্না সবই আমার দায়িত্ব। আর ও শুধু বসে বসে টিভি দেখে যায়। তবে এখানেও মূল দোষ কিন্তু আমারই। আসলে আমি ওকে কোনও দিনই নিজের মতের কথা বলিনি। সেই কারণেই সমস্যা বেড়েছে। এবার রোজকার রোজ এই বিষয়টা মেনে নিতে নিতে আমার ভালো লাগছে না। এমনকী মনের উপরও পড়ছে প্রভাব। তাই আমার মনে হচ্ছে যদি কোনও ভাবেই বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়া যায়।

সবথেকে বড় কথা হল, বিষয়টি আমার এখন আর ভালো লাগছে না। বউ পুরো অলস নম্বর ওয়ান। তাই এই সমস্যা আমায় পোহাতে হচ্ছে। এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে সহ্যের সীমা পেরিয়ে যাচ্ছে। এখন বুঝতে পারছি না যে আমার কী করা উচিত। কোনও বিশেষজ্ঞ যদি এই বিষয়ে আমায় পরামর্শ দেন (Relationship Tips), তবে খুব ভালো হয়।

​বিশেষজ্ঞের উত্তর

সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ যশমিন মুঞ্জল বলেন, আসলে বিয়ের পর থেকেই আপনার এই সমস্যা শুরু হয়েছে। তাই গোটা বিষয়টি একেবারেই ভালো লাগছে না আপনার নিশ্চয়ই। এই সময় খুব রাগ হওয়া, নিজেকে দোষ দেওয়া ইত্যাদি লেগে থাকতেই পারে। তবে এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে নিজের সঙ্গীর সঙ্গে কথা বলা হল খুবই জরুরি। তবেই ভালো থাকতে পারবেন। অন্যথায় সমস্যা দেখা দিতেই পারে।

আমার মনে হয় আপনার বিয়ের পর সবকিছুই নেগেটিভ দিকে এগিয়েছে। এভাবে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখা কিন্তু খুবই কঠিন। আসলে আপনি জনসমক্ষে বোঝাতে চাইছেন যে আপনার কোনও সমস্যা নেই, আদতে কিন্তু রয়েছে। তাই চিন্তার অবশ্যই রয়েছে।

​আপনি স্ত্রীর থেকে কী চান?

আপনি আগেই বলেছেন যে স্ত্রী হলেন একদম অলস একজন ব্যক্তি। তিনি শুধু কাজ করেন না, এমনই নয়। পাশাপাশি তিনি আপনি কাজ করার সময় টিভি দেখেন। এবার এই অবস্থায় আমার মনে হয় যে এই সম্পর্ক থেকে কী চান, এই বিষয়টি ঠিক করে ফেলতে হবে। নইলে গোটা কাজটা আপনাকে একাই দেখতে হবে। আপনিই করবেন বাড়ির কাজ।​সহযোগিতা আশা করাই যায়এটা আপনার উপরই নির্ভর করছে যে স্ত্রীর থেকে আপনি কী চান! কারণ নিজের স্ত্রীর কাছ থেকে সামান্য সহযোগিতা আপনি আশা করতেই পারেন।। এমনকী সম্মানও পাওয়ার আশা থাকতেই পারে। এটা না থাকলে তো সম্পর্কের (Relationship) বহুদিক আগেই নষ্ট হয়ে যায়। তাই আপনাকে এই দিকটায় নজর দিতেই হবে।​পরিবারকে জানান
আপনার সব কথা শুনে মনে হচ্ছে, আরও একটু গভীরে গিয়ে গোটা বিষয়টার ভিতরে আপনাকে পৌঁছে যেতে হবে। এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে আপনার উচিত পরিবারের সঙ্গে কথা বলা। এক্ষেত্রে স্ত্রীর পরিবারের সঙ্গে কথা বলে নিন। আসলে আপনি রোজ এভাবে রাগ করলে, মন খারাপ করে রাখলে কোনও সমস্যার সমাধান হবে না। তিনি যেমন ছিলেন তেমনই থাকবেন। আপনি যদি চান যে সম্পর্কে কোনও সমস্যা না হোক তবে কিন্তু মুখ খুলতেই হবে।

Back to top button