বন্যা পরিস্থিতিতে পদ্মা সেতু নিয়ে উৎসব বন্ধের দাবি বিএনপির

দেশের ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতিতে পদ্মা সেতু নিয়ে উৎসব না করে বিপর্যস্ত এলাকায় পর্যাপ্ত ত্রাণের ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়েছে বিএনপি। আজ রোববার নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই দাবি জানান।

দেশের বন্যা পরিস্থিতির চিত্র তুলে সরকারের ভূমিকার সমালোচনা করেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘মহাদুর্যোগের করাল গ্রাসে যখন মানুষ বিপর্যস্ত বিপন্ন তখন সরকার পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের উৎসব আনন্দে আত্মহারা।’

আজকের পত্রিকা অনলাইনের সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন
রিজভী বলেন, ‘পদ্মা সেতু উদ্বোধন উৎসবের নামে শত শত কোটি টাকা উড়ানো হচ্ছে। অথচ সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা ও উত্তরাঞ্চলসহ বন্যা উপদ্রুত এলাকাসমূহে প্রায় কোটি পানিবন্দী মানুষের সাহায্যের জন্য সরকারি বরাদ্দ একেবারেই অপ্রতুল। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, এর মধ্যে সিলেটে ২০০ টন চাল, নগদ ৩০ লাখ টাকা, ৮ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার পাঠানো হয়েছে। ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেছেন বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৪০ লাখ মানুষ। বরাদ্দ ৬০ লাখ টাকার কথা বলা হলেও মূলত: ৩০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। তার মানে জনপ্রতি দেড় টাকা।’

সরকারের সমালোচনা করে রিজভী আরও বলেন, ‘সরকারের চরম ব্যর্থতা, লুটপাট, উদাসীনতা, অদূরদর্শিতা আর খামখেয়ালিপনার কারণে দেশের বন্যা পরিস্থিতির ভয়াবহ অবনতি ঘটেছে। হাওর ও নদীগুলোতে বাঁধ এবং সেতু দেওয়া হয়েছে অপরিকল্পিতভাবে। সেখানে এত দুর্নীতি হয়েছে যে, সব বাঁধ ভেঙে যাচ্ছে এবং নতুন করে যেসব রাস্তা তৈরি করা হয়েছে-তা ভেঙে যাচ্ছে।’

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, ‘আমাদের দাবি পদ্মা সেতু নিয়ে উৎসব বন্ধ করুন। আমরা দাবি করছি বন্যাকবলিত অঞ্চলগুলোকে দুর্গত অঞ্চল হয়েছে ঘোষণা করা হোক এবং কোনো বিলম্ব ছাড়া এই অঞ্চলগুলোর জনগণের জন্য ত্রাণের ব্যবস্থা করা হোক।’

Back to top button