‘ব্রাজিলকে সবাই হিংসা করে’

ফুটবল বিশ্বকাপের এখনো ৫ মাস বাকি থাকলেও চারদিকে আলোচনার কমতি নেই। এবারের আলোচনা অবশ্য ব্রাজিল-আর্জেন্টিনাকে নিয়েই একটু বেশি হচ্ছে। কারণ দুই দলই আছে দুর্দান্ত ফর্মে। একদিকে মেসির শেষ বিশ্বকাপ ধরা হচ্ছে অন্যদিকে আবার তারা টানা অপরাজিত।

এদিকে ফেবারিটদের তালিকায় এবারও যথারীতি আছে ব্রাজিলের নামও, যারা ষষ্ঠ বিশ্বকাপ জয়ের আশায় দিন গুনছে। ২০০২ সালের পর থেকে বিশ্বকাপ জেতার অপেক্ষায় থাকা দলটা আর অপেক্ষা দীর্ঘ করতে চান না।

দলটার কোচ তিতে অবশ্য যথেষ্ট আশাবাদী। গার্ডিয়ানকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ব্রাজিলকে বিশ্বজয়ীর মঞ্চেই দেখছেন এই কোচ, ‘আমি আশাবাদী। আমরা বিশ্বকাপে পৌঁছে গেছি, এখন সময় ফাইনালে ওঠার, চ্যাম্পিয়ন হওয়ার। এটাই সত্যি।

তিতে অবশ্য নিজের ঢোলও পিটিয়েছেন, ২০১৮ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে আমার অধীন টানা ১২ ম্যাচ, এ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে টানা ১৭ ম্যাচ, মোট ২৯ ম্যাচে আমরা হারের মুখ দেখিনি।’

তিতে আরও যোগ করলেন, ‘দক্ষিণ আমেরিকার বাছাইপর্ব খুব কঠিন। ১৭ ম্যাচে মিলিয়ে আমরা আর্জেন্টিনার চেয়ে ১৩ গোল বেশি করেছি। ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়েও আমরা সবার সেরা। ২০১৯ কোপা আমেরিকার চ্যাম্পিয়ন আমরা। ২০২১ সালের কোপা আমেরিকাতে রানার্সআপও হয়েছি, সেবার জিততে পারিনি কিন্তু আমাদের পুরো প্রক্রিয়াই বোঝা গেছে। বাছাইপর্বের ১৭ ম্যাচের মধ্যে ১৩টিতেই কোনো গোল হজম করিনি, প্রতি ম্যাচে গড়ে আড়াইটা করে গোল করেছি।’

কিন্তু সন্দেহবাদীদের সংশয় দূর করে দিয়েই নেইমারদের বিশ্বসেরা করতে চান তিতে, ‘ব্রাজিলকে কি সবাই ঈর্ষা করে? আপনাকে একটা কাহিনি বলি। ২০১৮ বিশ্বকাপে বেলজিয়ামের কাছে হেরে বিদায় নেওয়ার পর ইতালির এক কোচ মিরান্দাকে উপহাস করেছিল।

সে বলেছিল, “বেলজিয়ামের কাছে হেরে বিদায় নিতে কেমন লাগে?” আমি এটা মিরান্দার কাছ থেকে শুনেছিলাম, এরপর মিরান্দাকে বলেছিলাম, বিদায় নিতে কেমন লাগে-এটা ওই কোচ বুঝবে না, কারণ সে কখনো ব্রাজিলের মতো দলের কোচ ছিল না, এমনকি নিজের দেশেরও কোচ ছিল না। এ রকম অনেকেই ব্রাজিলকে হিংসা করে। কিন্তু তারা সেটা স্বীকার করতে চায় না। বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলকেই হিংসা করা হয় সম্ভবত। জাগালোর মতো কোচকে যদি সমালোচনা করা হয়, তাহলে আমাকে নিয়ে তো সমালোচনা হবেই!’

সোনালীনিউজ/এআর

Back to top button