ধর্ষণ করতে গিয়ে পুরুষাঙ্গ হারালেন যুবক

ধর্ষণ থেকে বাচঁতে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার দৌলরদী গ্রামে শাহ আলম নামের এক যুবকের পুরুষাঙ্গ কেটে দিলেন গৃহবধু ও তার স্বজনরা। গত শুক্রবার রাতে ওই গৃহবধুর ঘরে এ ঘটনা ঘটে। আহত রক্তাক্ত যুবককে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 আহত যুবক শাহ আলম উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের দৌলরদী গ্রামের মোস্তফা মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় গৃহবধু মেহেরুন বেগম বাদি হয়ে গতকাল শনিবার সোনারগাঁ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, তিনি উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের দৌলরদী গ্রামের মোতালিব মিয়ার স্ত্রী। তার স্বামী ব্যবসার কাজে বাড়ির বাইরে থাকেন এ সুযোগে তাদের প্রতিবেশী শাহ আলম তাকে দীর্ঘ দিন ধরে কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছে। বিষয়টি নিয়ে শাহআলমকে বারবার সতর্ক করেছিলেন ওই নারী।

এতে তিনি রাজী না হওয়ায় গত শনিবার রাতে বাথরুমে যাওয়ার জন্য ঘর থেকে বের হলে শাহ আলম তাকে জাপটে ধরে। এ সময় তার সঙ্গে ধস্তাদস্তি হলে তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এলে শাহ আলম পালিয়ে যায়।

এদিকে শাহ আলম গৃহবধু মেহেরুন বেগমের ঘরে প্রবেশ করে তাকে জাপটে ধরলে তার মেয়ে, মেয়ের জামাতা একত্রিত হয়ে তাকে বেধে শাহ আলমের পুরুষাঙ্গ কর্তন করা হয়। আহত যুবক শাহ আলমকে প্রথমে মদনপুর এলাকায় দি বারাকা হাসপাতালে পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত শাহ আলম জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রাস্তায় একা পেয়ে মেহেরুন বেগম ও তার লোকজন তাকে বেধে তার গোপনাঙ্গ কেটে দেয়। সোনারগাঁ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ নেওয়া হয়েছে বিষয়টির তদন্ত চলছে।

Back to top button