১০০ মিলিয়নের লুকাকুকে ৮ মিলিয়নে ছেড়ে দিল চেলসি

রোনালদো ফেনোমেনন, জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ এবং রোমেলু লুকাকুকে এক বিন্দুতে মিলানো যায়। যদিও লুকাকুর অনেক পথ যাওয়ার বাকি তবে তিনজনই কিংবদন্তি স্ট্রাইকার। তাদের মধ্যে মিল হলো ক্যারিয়ারে তিনজনই যাযাবর।

লুকাকুর সিনিয়র ক্যারিয়ার ১৩ বছরের। এর মধ্যে আটবার দলবদল করতে যাচ্ছেন তিনি। কোথাও স্থায়ী হতে পারছেন না এই বেলজিয়াম স্ট্রাইকার। এক মৌসুম আগে ইন্টার মিলান থেকে রেকর্ড দামে চেলসিকে ফিরেছিলেন তিনি। আবার ফিরে যাচ্ছেন ইতালিতে। পানির দামে।

রোনালদো নাজারিও যেমন ক্যারিয়ারে বার্সেলোনা, রিয়াল মাদ্রিদ, ইন্টার মিলান, এসি মিলানে ঘুরে বেড়িয়েছেন। খেলেছেন ক্রুজেইরো আবার করিস্থিয়ানে। ইব্রাও তেমনি বার্সা, ইন্টার, এসি মিলান, জুভেন্টাস, পিএসজি, ম্যানইউ; কোথায় খেলেনি। ২৩ বছরের ক্যারিয়ারে ১১ বার বাসা বদল করেছেন।

গত দুই মৌসুমে ইন্টার মিলানের হয়ে ৯৫ ম্যাচে ৬৪ গোল করেন লুকাকু। সর্বশেষ মৌসুমে ইন্টারকে জেতান লিগ শিরোপা। এরপর ক্লাবের আর্থিক দুর্দাশার সময়ে চলে আসেন চেলসিতে। কিন্তু বস টমাস টুখেলের সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় এবং সেরা ফুটবল দেখাতে না পারায় তিনি আবার ফিরছেন ইন্টারে।

সর্বশেষ মৌসুমে চেলসিতে সব মিলিয়ে ৪৪ ম্যাচে ১৫ গোল করা লুকাকুকে মাত্র ৮ মিলিয়ন ইউরোয় ধারের শর্তে ছেড়ে দিচ্ছে চেলসি। সঙ্গে এড অন্স ও পারফরম্যান্স বোনাস বাবদ থাকছে ৪ মিলিয়ন ইউরো পাওয়ার সম্ভাবনা। তিনি এতোটাই চেলসির গলার কাঁটা হয়ে পড়েছেন যে, মৌসুম শেষে ধারের মেয়াদ শেষ হলে কেনার শর্ত ছাড়াই তাকে পার করে দিচ্ছে ব্লুজরা।

এ নিয়ে দ্বিতীয় মেয়াদে চেলসিতে ফিরে পুরোপুরি ব্যর্থ লুকাকু। ২০১১ সালে আন্ডারলেখট থেকে চেলসিতে আসেন বেলজিয়াম স্ট্রাইকার। তিন মৌসুমে তিনি ক্লাবটির হয়ে ৯৮ ম্যাচে ৪১ গোল করেন। অথচ চেলসিতে এসে দুই মৌসুমে সব মিলিয়ে ১৫ ম্যাচ খেলে কোন গোল করতে পারেননি।

Back to top button