পায়ের আকার বলে দেবে আপনার ব্যক্তিত্ব!

আপনার কথা, আচরণ, হাসি আপনার ব্যক্তিত্বের অনেকটাই বহিঃপ্রকাশ ঘটায়। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,

সমুদ্রশাস্ত্র অনুযায়ী আপনার শারীরিক গঠনও আপনার সম্পর্কে অনেক কিছুই জানান দেয়। আর তেমনই এক অংশ হলো পা। একটু খেয়াল করলেই দেখবেন,

আমাদের সবার পায়ে ৫ আঙুল থাকলেও পায়ের আকার কিন্তু মোটেও এক নয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, পায়ের বিভিন্ন আকার বিভিন্ন ব্যক্তিত্বের প্রকাশ ঘটায়। পায়ের আকার সাধারণত লক্ষ করা যায়। এগুলো

হলো রোমান পা, পিজেন্ট বা বর্গাকার পা, গ্রিক পা এবং মিসরীয় পা। এই চার ধরনের পায়ের আকৃতি আপনার ব্যক্তিত্বের অনেক কিছুই বলে দেয়। চলুন জেনে নিই পায়ের আকৃতি দেখে

কীভাবে মানুষের ব্যক্তিত্ব জানবেন। ১. রোমান পা: এই পায়ের আকারে বুড়ো আঙুল থেকে পর পর তিনটি আঙুল একই মাপের হয়ে থাকে। পায়ের বাকি

দুটো আঙুল ক্রমান্বয়ে ছোট হয়। সমুদ্রশাস্ত্রে এসব পায়ের অধিকারী ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব ও দেহের আকারের মধ্যে একটা সামঞ্জস্য থাকে। এরা সাধারণত জন্মগতভাবেই ঘরের থেকে

বাইরের জীবনে বেশি সময় দেন। এদের অনেকেই অ্যাডভেঞ্চারপ্রিয়, ভ্রমণকারী ও আবিষ্কারক প্রকৃতির হয়ে থাকেন। এই ধরনের মানুষ সহজেই প্রতিকূল পরিবেশে মানিয়ে নিতে ও নতুন সংস্কৃতিও আপন করে নিতে পারেন।

২. পিজেন্ট বা বর্গাকার পা: এই পায়ে পর পর পাঁচটি আঙুল একই মাপের হয়ে থাকে। তাই এ ধরনের পা দেখতে বর্গাকার লাগে। বর্গাকার পা এর পরিবর্তে এই ধরনের পায়ের আকৃতিকে পিজেন্ট পাও বলা হয়ে থাকে।

এই ধরনের পায়ের অধিকারী মানুষ মানুষের উপকার করতে ভালোবাসে। খুব স্পর্শকাতর প্রকৃতিরও হয়ে থাকেন। ধৈর্যশীল, আবেগী হওয়ার পাশাপাশি এরা বাস্তববাদীও হন। গুরুত্বপূর্ণ যে কোনো সিদ্ধান্ত খুব দ্রুততার সঙ্গে নিতে পারেন এরা।

৩. গ্রিক পা: গ্রিক পায়ের একটি উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হলো এই ধরনের পায়ের দ্বিতীয় আঙুলটি সবচেয়ে বড় থাকে। তবে জেনে অবাক হবেন এমন পায়ের অধিকারী মানুষ খুব কমই খুঁজে পাবেন। ধারণা করা হয়, সারাবিশ্বে সব মানুষের মধ্যে মাত্র প্রায় ১৩ শতাংশই এ ধরনের পায়ের অধিকারী হয়ে থাকেন।

৪. মিসরীয় পা: মিসরের কথা শুনলেই কেন যেন রানি কিউপ্রেট্রার কথা মনে হয়। তার দেশের নাম অনুসারে এই পায়ের আকৃতির নামকরণ করা হয়েছে। পায়ের আকৃতি মূলত আমাদের বেশির ভাগ মানুষের সঙ্গেই মিলে যাবে। কারণ এ ধরনের পায়ে পাঁচ আঙুলের মধ্যে বুড়ো আঙুলই সবচেয়ে বেশি বড় থাকে। তারপরের সব আঙুলই ক্রমান্বয়ে ছোট হতে থাকে।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, সারা বিশ্বের প্রায় ৫৫ ভাগ মানুষই এই ধরনের পায়ের অধিকারী হয়ে থাকেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই পায়ের অধিকারী মানুষ সাধারণত প্রকৃতিগতভাবেই বেশ চাপা স্বভাবের হয়ে থাকেন। পাশাপাশি ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন ও জ্ঞানী হওয়ার কারণে অন্যের মাধ্যমে এরা খুব কম প্রভাবিত হন। সৃষ্টিশীল কাজেও বেশ দক্ষ হয়ে থাকেন এই পায়ের অধিকারী মানুষ।

Back to top button