দুই বিমানের সংঘর্ষের ঘটনায় কঠোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশের দুটি উড়োজাহাজের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় সে সময় দায়িত্বে থাকা প্রত্যেক কর্মকর্তা-কর্মচারীর জবাবদিহি চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সে জন্য জড়িত সবাইকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

সোমবার (২৫ জুলাই) সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ নির্দেশ দেন তিনি। বৈঠকে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন সরকারপ্রধান।

পরে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন এখন থেকে এটা ফিক্সড করে দিতে হবে। যেমন দুটো বিমান ধাক্কা লাগল। এখানে বিমান তো একা একা ধাক্কা লাগতে পারে না, এখানে তো অনেকেই ডিউটি করে। এটা ওয়ার্কআউট করে প্রত্যেকটা কাজের রেসপনসিবিলিটি ফিক্সড করতে হবে।’

‘ওই সময়ে, ওই কাজে যারা রিলেটেড থাকবে সবাইকে এটার জন্য দায় বহন করতে হবে। কীভাবে তাদেরকে কমপনসেট করতে হবে এটা ফাইন্ডআউট করে কুইকলি ব্যবস্থা নিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘ধরেন ওইদিন ধাক্কা খেল, যারা এর সাথে জড়িত, একজন দুজন তো আর জড়িত না। একজন পুশ করে, একজন পাইলট থাকে বা গার্ড থাকে, ক্লিয়ারেন্স দেয়, ট্রাফিকে যারা থাকে তাদের সবাইকেই শোকজ করতে বলা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, গত ২৬ জুন রাত ৯টায় শাহজালালে বিমানের একটি বোয়িং সেভেন এইট সেভেন ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজকে হ্যাঙ্গারে প্রবেশ করানোর সময় সেখানে বাহিরে দাঁড়িয়ে থাকা একটি বোয়িং সেভেন থ্রি সেভেন উড়োজাহাজের একটি পাখা এবং পাখার নিচের অংশে আঘাত লাগে। এতে সেভেন থ্রি সেভেন উড়োজাহাজটির বাম ডানা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অন্যদিকে ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজটির ডান ডানাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

তারও আগে, ১০ এপ্রিল দুপুরে বিমানের বোয়িং ট্রিপল সেভেন উড়োজাহাজ হ্যাঙ্গারের ভেতরে প্রবেশ করানোর সময় আগে থেকেই সেখানে থাকা বোয়িং সেভেন থ্রি সেভেন উড়োজাহাজের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। ফলে ট্রিপল সেভেন উড়োজাহাজের র‍্যাডোম ও সামনের বাল্কহেড এবং সেভেন থ্রি সেভেন উড়োজাহাজের বাঁদিকের আনুভূমিক স্ট্যাবিলাইজারের কোনার অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

সেই সময় দায়িত্বে অবহেলার জন্য বিমানের পাঁচ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে বরখাস্ত করা হয়।

Back to top button