নারীর চোখে প্রেমের ফাঁদ, সব হারালেন যুবক

ফেনী থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে চোখের চাহনিতে প্রেমের ফাঁদ পেতেছিলেন এক নারী। এই চোখে চোখ রেখেই প্রতারক চক্রের কাছে সর্বস্ব হারালেন রাজিব মজুমদার নামে ৩৫ বছর বয়সী এক যুবক। প্রতারক চক্রের মূল হোতা মাহি এক নারী। তার সঙ্গেই চোখাচোখি হয়েছিল রাজিবের। ফেনী শহরের নাজির রোডে মঙ্গলবার দুপুরে ওই প্রতারণার ঘটনা ঘটে। পরে এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেন ভুক্তভোগী রাজিব।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ফেনী সদর উপজেলার দেবীপুর গ্রামের দুলাল মজুমদারের ছেলে রাজিবের সঙ্গে ২ সপ্তাহ আগে চট্টগ্রামে যাওয়ার পথে চোখাচোখির সূত্র ধরে মাহি নামে ওই তরুণীর সঙ্গে বাসে পরিচয় হয়। পরে তারা মোবাইল নম্বর বিনিময় করেন।

মঙ্গলবার সকাল ১০টায়ঙ ফোন করে ফেনী শহরের নাজির রোডে নিজের বাসায় ডাকেন রাজিবকে। রাজিব ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল নিয়ে মাহির বাসায় যায়। বাসায় যাওয়ার কিছুক্ষণ পরই বিদ্যুৎ চলে যায়।এ সময় আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা মাহির সহযোগীরা বাসায় প্রবশে করে এবং মাহির সঙ্গে রাজীবকে ঘনিষ্ঠ ছবি ও ভিডিওতে পোজ দিতে বাধ্য করে।

এ সময় অজ্ঞাত ওই পাঁচ যুবক রাজীবকে চড়-থাপ্পড ও কিল-ঘুষি মেরে সঙ্গে থাকা নগদ ৫ হাজার ৭০০ টাকা, মোবাইল ও মোটরসাইকেলের সব কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয়। এ ছাড়া মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে মোটরসাইকেল বিক্রির স্টাম্পে স্বাক্ষর নেয় এবং ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা মূল্যের মোটরসাইকেলটি নিয়ে যায়।

শুধু তাই নয়, রাজিবকে বিকাশের মাধ্যমে ২ লাখ টাকা এনে দিতেও বলে প্রতারকরা। পরে শহরের নিহা মেডিক্যাল সেন্টার থেকে রাজিবের বন্ধু আজাদকে ফোন দিয়ে বিকাশে ১০ হাজার টাকা নিয়ে বিকাল পৌনে ৪টার তাকে ছেড়ে দেয়।

মুক্ত হয়ে রাজিব মজুমদার ফেনী মডেল থানায় অভিযোগ দেন। এ বিষয়ে দ্রুত আইনি পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে বলে জানান, ফেনী মডেল থানার ওসি মো. নিজাম উদ্দিন।

Back to top button