‘কুকুরের সঙ্গে কবর দিবা’ লিখে একসাথে আত্মহত্যার চেষ্টা দুই বোনের ,অতঃপর

পোষা কুকুরের মৃত্যুর শোক সইতে না পেরে ঘুমের ওষুধ সেবন করে ও হাত কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন দুই বোন। শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারের মুকুন্দী এলাকার একটি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। পরে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত দুই বোন ওই এলাকার পল্লী চিকিৎসক মোস্তফা মিয়ার মেয়ে পারুল আক্তার (২৩) ও শাহনাজ (২১)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, তিন দিন আগে পারুল ও শাহনাজের পোষা কুকুরটি মারা যায়। এজন্য হাতের রগ কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন তারা। এছাড়া ঘুমের ওষুধ সেবন করেছেন। তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মারা যাওয়া কুকুরটি তাদের বিছানায় পাওয়া গেছে। একইসঙ্গে কুকুরের সঙ্গে একত্রে কবর দেওয়ার কথা ডায়েরিতে লিখেছেন তারা। এমনকি কুকুরটি মারা যাওয়ার তিন দিন পরও নিজেদের ঘরে রেখেছেন।

আড়াইহাজার থানার ওসি আজিজুল হক হাওলাদার বলেন, কিছুদিন আগে খেলতে গিয়ে কুকুরটি পায়ে আঘাত পায়। সেই আঘাত থেকে কুকুরটি তিন দিন আগে মারা যায়। কুকুরটিকে তারা টাইগার বলে ডাকতেন। মারা যাওয়ার ফলে দুঃখে-কষ্টে দুই বোন ঘুমের ট্যাবলেট ও হাত কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন।

আজ ঘরের দরজা খুলে তাদের অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাদের চিকিৎসা চলছে। তিনি আরও বলেন, দুই বোন একটি ডায়েরিতে লিখেছেন, আমাদের ভাইয়ের (কুকুরের) সঙ্গে দুই বোনকে মাটি দিবা। ভাই আমাদের আদরের ছিল।

আড়াইহাজার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মঞ্জুরুল মোরশেদ বলেন, ডায়েরির পাশাপাশি একটি ভিডিও পাওয়া গেছে। ২ মিনিট ৪২ সেকেন্ডের ভিডিওতে দেখা গেছে, দুই বোন মারা যাওয়া কুকুরকে নিয়ে ভিডিও করেছেন। ভিডিওতে তারা বলেছেন, কুকুরটা আমাদের ভাই, সে মারা গেছে। আমরাও মারা যাবো, তিন জনকে একসঙ্গে কবর দিবা।

Back to top button