গুপ্তহত্যার চেষ্টা থেকে বেঁচে গেলেন পুতিন

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গুপ্তহত্যার চেষ্টা থেকে বেঁচে গেছেন। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ইউরো উইকলি নিউজের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বুধবার রাশিয়ার স্বতন্ত্র টেলিগ্রাম চ্যানেল জেনারেল এসভিআর পুতিনকে গুপ্তহত্যার চেষ্টার তথ্য প্রকাশ করেছে। তবে কখন তাকে হত্যার চেষ্টা হয়েছে সেবিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

 ইউরো উইকলি নিউজ বলছে, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণ শুরুর পর থেকে বিভিন্ন সময়ে প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের শারীরিক অবস্থা নিয়ে নানা ধরনের গুঞ্জন ছড়িয়েছে। অতীতেও রাশিয়ার এই প্রেসিডেন্টকে একাধিকবার গুপ্তহত্যার চেষ্টা হয়েছিল। ২০১৭ সালে প্রথমবারের মতো পুতিন স্বীকার করেছিলেন যে, তিনি অন্তত পাঁচবার গুপ্তহত্যার চেষ্টা থেকে বেঁচে গেছেন।

টেলিগ্রাম চ্যানেলটির বরাত দিয়ে ইউরো উইকলি বলেছে, পুতিনকে বহনকারী লিমোজিন গাড়ির সামনের দিকের বামপাশের চাকায় বিকট শব্দ হয়েছিল। ধোঁয়া বের হওয়ার পরও গাড়িটি দ্রুত নিরাপদে চলে যায়। তবে এই ঘটনায় রুশ প্রেসিডেন্ট অক্ষত ছিলেন। সংবাদমাধ্যমটি বলছে, ওই ঘটনার পর কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিলো।

এদিকে অস্ট্রেলিয় সংবাদমাধ্যম নিউজ.সিও.এইউ পুতিনকে হত্যাচেষ্টার ওই ঘটনার বিষদ বিবরণ প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়েছে, নিরাপত্তা উদ্বেগের মধ্যে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন একটি ছদ্মবেশী মোটর শোভাযাত্রায় করে তার সরকারি বাসভবনে ফিরছিলেন। ফেরার পথে বাসভবন থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে পুতিনের গাড়িবহরের প্রথম গাড়িটিকে একটি অ্যাম্বুলেন্স বাধা দেয়। পরে গাড়িবহরের দ্বিতীয় গাড়িটি না থেমে চারপাশে চক্কর দেয়।

সংবাদমাধ্যমটি বলেছে, এই ঘটনার সময় গাড়িবহরে বাধা দেওয়া অ্যাম্বুলেন্সে একজনের মরদেহ পাওয়া যায়। তবে কোনও ধরনের সূত্র উল্লেখ না করে টেলিগ্রাম চ্যানেল জেনারেল জিভিআর বলেছে, প্রেসিডেন্ট পুতিনের দেহরক্ষী দলের প্রধান এবং আরও কয়েকজনকে বরখাস্ত এবং নিরাপত্তা হেফাজতে রাখা হয়েছে।

ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর ক্ষয়ক্ষতি এবং পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়াসহ একাধিক কারণ উল্লেখ করে পুতিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আনেন সেন্ট পিটার্সবার্গের একদল রাজনীতিবিদ। এছাড়াও পুতিনকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য রুশ সংসদের নিম্নকক্ষ স্টেট ডুমায় আবেদন করার এক সপ্তাহ পরে পুতিনকে হত্যাচেষ্টার খবর প্রকাশ্যে আসে।

এদিকে, রাশিয়ার একজন ডেপুটি বলেছেন,গত সোমবার সেন্ট পিটার্সবার্গ, মস্কো এবং অন্যান্য কয়েকটি অঞ্চলের অন্তত ৬৫টি পৌরসভার প্রতিনিধিরা পুতিনের পদত্যাগের দাবিতে একটি পিটিশনে স্বাক্ষর করেছেন।

সূত্র: এনডিটিভি

Back to top button