বিমানবন্দরে সংবর্ধনা, ছাদখোলা বাসে বাফুফের পথে চ্যাম্পিয়নরা

বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে সাফ চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে। তবে এর আগে থেকেই বিমানবন্দরে অবস্থান করছিল হাজার হাজার মানুষ এবং সেই সঙ্গে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল (এমপি) এবং বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) কর্মকর্তারা। খেলোয়াড়দের বিমানবন্দরের ভেতরেই ফুল দিয়ে বরণ করে নেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী।বিমানবন্দরের ভেতরেই খেলোয়াড়দের নিয়ে কেক কেটে উদযাপন করা হয়।

আলো ছড়ানো, আনন্দে জড়ানো এক টুর্নামেন্ট ছিল হিমালয়ের দেশে। কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে সোমবার সাফল্য-স্পর্শে শিহরিত লাল-সবুজের ফুটবলকন্যারা। অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়ে ইতিহাস গড়েছে বাংলাদেশ। সাবিনা-সানজিদাদের অভূতপূর্ব সাফল্যস্নাত সন্ধ্যায় গর্বিত গোটা দেশ।

 বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় যৌথভাবে মারিয়া-মনিকাদের বরণের উদ্যোগ নেয় আগে থেকেই। মঙ্গলবার যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে বাফুফে সমন্বয়সভা করেছে। সেখানে সিদ্ধান্ত হয়-বিজয়ী মেয়েদের সংবর্ধনা দেবেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।

গতকালই বিআরটিসির একটি দোতলা বাসের ছাদ খুলে চ্যাম্পিয়নদের প্যারেডের জন্য তৈরি রেখেছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। বিমানবন্দরে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বরণ করবেন তাদের। মেয়েরা এরপর ট্রফি নিয়ে সেই বাসে চড়ে আসবেন মতিঝিলে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন ভবনে।

সেখানে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাহউদ্দিন আরেক দফা বরণ করবেন তাদের। সেই বাস বিমানবন্দর থেকে বনানী, মহাখালী হয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে দিয়ে বিজয় সরণি উড়ালসেতু দিয়ে বাঁয়ে চলে যাবে। তেজগাঁও, কাকরাইল, ফকিরাপুল, আরামবাগ হয়ে ফুটবলাররা পৌঁছবেন বাফুফে ভবনে।

Back to top button