দুর্ঘটনা রোধে ট্রাফিক আইন মেনে চলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

সড়কে দুর্ঘটনা রোধে এবং নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে পথচারীদের ট্রাফিক আইন মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া দুর্ঘটনা ঘটলেই আইন নিজের হাতে তুলে না নিতে এবং চলাচলের সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার না করার আহ্বান জানান তিনি।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় নির্মিত আন্ডারপাস, মহাসড়ক, সংযোগসড়ক এবং সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সরকারপ্রধান এই আহ্বান জানান । গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে যুক্ত হন তিনি।

২০১৮ সালে ফুটপাতে দাঁড়ানো অবস্থায় বাসচাপায় শহীদ রমিজ উদ্দীন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর কলেজ সংলগ্ন রাস্তায় পথচারী আন্ডারপাস নির্মাণের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী। যান চলাচল সচল রেখে এই আন্ডারপাসের নির্মাণ কাজ শেষ করেছে সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ার্স কনস্ট্রাকশন ব্যাটেলিয়ন।

নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রকল্পগুলোর কাজ শেষ করায় সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী। সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধ ও যান চলাচলে গতি আনতে সরকারের নানা উদ্যোগ অব্যাহত আছে বলেও অনুষ্ঠানে জানান প্রধানমন্ত্রী।নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে চালক ও পথচারীদের ট্রাফিক আইন মেনে চলার অনুরোধ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যোগাযোগ অবকাঠামোগুলো পরিকল্পিতভাবে গড়ে তোলা হচ্ছে যা দেশের অর্থনীতিতে গতি আনবে।

নতুন করে কোভিডের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় তা প্রতিরোধে সরকারের দেওয়া নির্দেশনাগুলো মেনে চলারও আহবান জানান বঙ্গবন্ধুকন্যা।রাঙ্গামাটির নানিয়ারচরে চেঙ্গী নদীর ওপর নির্মিত পার্বত্য চট্টগ্রামের দীর্ঘতম সেতুর উদ্বোধন করতে গিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, নানিয়ারচরে পার্বত্য চট্টগ্রামের সবচেয়ে দীর্ঘতম এই সেতু নির্মাণের ফলে শান্তি চুক্তির বাস্তবায়ন আরও একধাপ এগোলো। এতে করে স্থানীয়দের জীবনযাত্রার উন্নয়ন ও উৎপাদিত পণ্য বাজারজাতকরণে ভূমিকা রাখবে।

অনুষ্ঠানে আরও যেসব প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়েছে সেগুলো হলো ঢাকা এয়ারপোর্ট মহাসড়কে শহিদ রমিজ উদ্দীন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজ সংলগ্ন পথচারী আন্ডারপাস, সিলেট শহর বাইপাস-গ্যারিসন লিংক ৪ মহাসড়ক, বালুখালী (কক্সবাজার)-ঘুনধুম (বান্দরবান) সীমান্ত সংযোগ সড়ক ।সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের আওতায় এসব প্রকল্প নির্মাণ করা হয়।

প্রকল্পের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম, সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং চিফ মেজর জেনারেল ইবনে ফজল শায়েকুজ্জামানসহ বিভিন্ন পদস্থ কর্মকর্তারা।অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। প্রকল্পের স্পট থেকে সরকারি কর্মকর্তা ও উপকারভোগীরাও অনলাইনে যুক্ত ছিলেন।

Back to top button