৬০ তলা থেকে ঝাঁপ দিলেন মিস আমেরিকার

২০১৯ সালের মিস আমেরিকা প্রতিযোগিতার খেতাব বিজয়ী চেসলি ক্রিস্ট নিউ ইয়র্ক সিটির একটি বিলাসবহুল ৬০ তলা ভবন থেকে পড়ে মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৩০। বিউটি কুইন, আইনজীবী, ফ্যাশন ব্লগার এবং টিভি সংবাদদাতা সুপরিচিত এই নারী গত রবিবার (৩০ জানুয়ারি) সকাল ৭টার পর নিচে পড়লে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

 প্রাথমিকভাবে ঘটনাটি আত্মহত্যা বলেই ধারণা করা হচ্ছে। চেসলি ক্রিস্ট ভবনটির নবম তলায় থাকতেন।তার পরিবার এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘বিধ্বস্ত অবস্থা এবং বড় দুঃখের মধ্যে আমরা আমাদের প্রিয় চেসলির মৃত্যুর খবর শেয়ার করছি। তার দুর্দান্ত আলো ছিল, যা তার সৌন্দর্য এবং শক্তি দিয়ে বিশ্বজুড়ে অন্যদের অনুপ্রাণিত করেছিল। সে সবাইকে যত্ন করত, ভালবাসত, হাসত এবং উজ্জ্বল ছিল’।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘চেসলি প্রেমকে মূর্ত করেছেন এবং অন্যদের সেবা করেছেন- সামাজিক ন্যায়বিচারের জন্য লড়াই করা একজন অ্যাটর্নি হিসেবে তার কাজের মাধ্যমে, মিস ইউএসএ হিসাবে এবং একজন হোস্ট হিসেবে। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণভাবে, একজন কন্যা, বোন, বন্ধু, পরামর্শদাতা এবং সহকর্মী হিসেবে- আমরা জানি তার প্রভাব অনেকদিন থাকবে’।

চেসলি ক্রিস্ট তার মৃত্যুর কয়েক ঘন্টা আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় সক্রিয় ছিলেন। এর আগে রবিবার ক্রিস্ট তার ইনস্টাগ্রাম পেজে নিজের দিকে তাকিয়ে থাকা একটি চটকদার ছবি পোস্ট করে লিখেছিলেন, ‘আজকের দিনটি আপনার জন্য বিশ্রাম ও শান্তি নিয়ে আসুক’।

২৯শে জানুয়ারী শনিবার ক্রিস্ট তার ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে মিস নর্থ ক্যারোলিনা ইউএসএ মরগান রোমানো এবং মিস নর্থ ক্যারোলিনা টিন ইউএসএ গ্যাবি ওর্তেগাকে একটি অভিনন্দন বার্তা পোস্ট করেন। যেখানে তিনি বলেন, ‘মিস ইউএসএ এবং মিস টিন ইউএসএ-র জন্য শুভকামনা!’

১৯৯১ সালে মিশিগানের জ্যাকসনে জন্মগ্রহণ করা ক্রিস্ট বেড়ে ওঠেন দক্ষিণ ক্যারোলিনায়। ক্রিস্ট সাউথ ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশনা করেন এবং ২০১৭ সালে তিনি ওয়েক ফরেস্ট ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ ল থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

নর্থ ক্যারোলিনার আইনী পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠান পয়নার স্প্রুইল এলএলপি-তে সিভিল লিটিগেটর পদে একজন আইনজীবী হিসেবে কাজ করেছেন। নারীদের ব্যবসায়িক পোশাক ব্লগ হোয়াইট কলার গ্ল্যামও প্রতিষ্ঠা করেন তিনি।

২০১৯ সালে তিনি মিস নর্থ ক্যারোলিনা ইউএসএ খেতাব জিতেছিলেন এবং মিস ইউএসএ ২০১৯-এর মুকুট পরার পর তিনি ছুটি নেন। ২০২০ সালে তার ফার্ম তাকে তাদের প্রথম বৈচিত্র্য উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দেয়।এছাড়াও ২০১৯ সালে ক্রিস্ট টেলিভিশন সংবাদ মাধ্যম এক্সট্রা-র জন্য নিউ ইয়র্ক সংবাদদাতা হিসাবে কাজ শুরু করেন। এক্সট্রার টিভি শোয়ের প্রযোজকরা ওয়েবসাইটে পোস্ট করা এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘আমাদের হৃদয় ভেঙে গেছে’।

‘চেসলি শুধু আমাদের অনুষ্ঠানেরই একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিলেন না, তিনি আমাদের পুরো এক্সট্রা পরিবারের একজন প্রিয় মুখ ছিলেন এবং সব কর্মীদের হৃদয় স্পর্শ করেছিলেন। তার পরিবার এবং বন্ধুদের প্রতি আমাদের গভীর সমবেদনা’।

মৃত্যুর মাত্র কয়েক মুহূর্ত আগে ইনস্টাগ্রাম পোস্টে চেসলি লেখেন, ‘আজকের দিনটা আপনার জন্য শান্তি আর আরাম নিয়ে আসুক’। এই বাক্যের মধ্যেই তার মানসিক অবসাদের ইঙ্গিত লুকিয়ে রয়েছে বলে মনে করছেন কেউ কেউ।

Back to top button