ফাঁসির আদেশ লেখার পর বিচারকেরা কেন কলমের নিব ভেঙে ফেলেন? জেনে নিন

কোর্ট রুম মানুষে কানায় কানায় পরিপূর্ন। ভরা র্কোট রুমে বিচারক দণ্ডপ্রাপ্ত আসামির ফাঁসির রায় লিখেই কলমের নিবটা ভেঙে ফেলেন। কি? অবাক হচ্ছেন? অবাক হবারই কথা। সেই ব্রিটিশ আমল থেকেই এই প্রথা চলে এসেছে। সিনেমা বা সিরিয়ালে কিংবা বাস্তব জীবনে হয়তো অনেকেই এমন দৃশ্য দেখেছেন। কিন্তু কেন এই কাজ করা হয় তা অনেকেই জানেন না।

  এই নিব ভেঙে ফেলার পেছনে নানা রকম দার্শনিক ব্যাখ্যা আছে। তবে কোনো আইনে এরকম করার কোনো বিধি-বাদ্ধকতা নেই। এটি একটি রীতি হিসেবেই চলে এসেছে।

এই রীতির সমর্থনে যা জানা যায়,

১। মৃত্যুদণ্ডের মাধ্যমে একজনের জীবন কালের ইতি টেনে দেওয়া হয় এবং বিচারক চান না, দ্বিতীয়বার তাঁর আদেশ দ্বারা আরেকটি জীবনের ইতি হোক।

 ২। মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার পর সেই আদেশকে পুনর্বিচার করার সুযোগ থাকে না। যদি বিচারক, মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার পর শাস্তি সম্পর্কে তাঁর মানসিকতা পরিবর্তন করেন, তথাপি মৃত্যুদণ্ডের আদেশকে আর কোনোভাবেই পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। সেই বার্তার প্রতীকী হিসেবেই, ক্যাপিটাল পানিশমেন্ট দেওয়ার পর, আদেশনামা লেখার কলমটিকে আর ব্যবহারযোগ্য রাখা হয় না।

৩. বিচারক ‘অপরাধ বোধ’ থেকে পেনের নিব ভেঙে ফেলেন। কারণ, প্রাণ নেওয়ার ক্ষমতা শুধু ঈশ্বরেরই আছে বলে মনে করা হয়। তাই বিচারক পেনের নিব ভাঙার মধ্যে দিয়ে বুঝিয়ে দেন যে তিনি শুধু তাঁর পেশাদারি দায়বদ্ধতাটুকুই সারলেন।

Back to top button