ডাইনি অপবাদে ২২ বছরে ১০০০ পিটিয়ে হত্যা

বিজ্ঞানের এই যুগে এসেও বিশ্বের অনেক স্থানে এখনও মানুষ নানা কুসংস্কারে আচ্ছন্ন। কুসংস্কারের এই বিশ্বাসে মানুষ খুন করতেও দ্বিধা করে না। ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যে ঘটে এমনই অনেক ঘটনা। রাজ্যটিতে গত ২২ বছরে প্রায় এক হাজার মানুষকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে ডাইনি অপবাদে।

 শুধুমাত্র ২০২২ সালে এখন পর্যন্ত পাঁচজনকে এই কুসংস্কারের কারণে মানুষের সহিংসতার শিকার হতে হয়েছেন। এর মধ্যে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। ঝাড়খণ্ড পুলিশের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।প্রতিবেদনে বলা হয়, ডাইনি অপবাদে পিটিয়ে খুনের ঘটনায় এক হাজার জনের মধ্যে ৯০ শতাংশই নারী।

 এক সংবাদ মাধ্যমের পতিবেদনে বলা হয় , গত ২ জানুয়ারি ঝাড়খণ্ডের গুমলা জেলার লুকিয়া গ্রামে এক নারীকে ডাইনি অপবাদে মারধর করেন স্থানীয়রা। এতে তিনি মারা যান। মাকে রক্ষা করতে ছুটে যান তার দুই ছেলে। তারাও রক্ষা পাননি ওই আক্রমণ থেকে। তাদেরকেও দড়ি দিয়ে বেঁধে নির্মমভাবে পেটানো হয়। ওই ঘটনায় দুই ভাই গুরুতর আহত হন। এর মধ্যে একজনের চোখ নষ্ট হওয়ার পথে। এই ঘটনায় পঞ্চায়েত প্রধানসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে পুলিশ।

এর আগে ২০২২ সালের ৫ জানুয়ারি রাজ্যের খুনতি জেলার অদকি থানার তিরলা গ্রামে এক যুগলকে পিটিয়ে খুন করেন প্রতিবেশীরা। তাদের বিরুদ্ধে‘কালোজাদু’ জানার অভিযোগ ছিল গ্রামবাসীর। যদিও পাঁচদিন পর এই খবর প্রকাশ্যে আসে।

এছাড়া গত ১২ জানুয়ারি ডাইনি সন্দেহে মারধরের ঘটনা ঘটে ঝাড়খণ্ড রাজ্যে। থেতাই থানার অন্তর্গত কুড়পানি গ্রামে এক নারীকে ডাইনি অপবাদে বেধড়ক মারধর করা হয়। ওই নারীর ‘কুনজর’ এ তারই এক প্রতিবেশী নারী অকালে মারা যান -এমন অভিযোগ এনে তাকে পেটানো হয়।

সুত্রঃ  আনন্দবাজার

Back to top button