বেঙ্গালুরুর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ঘিরে ১৪৪ ধারা জারি

হিজাব বিতর্ক ঘিরে অশান্তি ঠেকাতে এ বার বেঙ্গালুরুর সব স্কুল-কলেজের আশপাশে ১৪৪ ধারা জারি করল কর্নাটক সরকার। আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ওই বন্দোবস্ত বলবৎ থাকবে বলে বুধবার জারি করা সরকারি নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো।

দুই সম্প্রদায়ের উত্তেজনা যেন কোনোভাবেই আর না বাড়ে, সে জন্য প্রশাসনিক উদ্যোগের সঙ্গে যোগ দিয়েছে শিক্ষার্থীদের সংগঠন ন্যাশনাল স্টুডেন্টস ইউনিয়নস অব ইন্ডিয়া (এনএসইউআই)। আর হিজাব পরা ভারতীয় নারীদের সাংবিধানিক অধিকার-এমন যুক্তিতে সরব হয়েছেন মূলধারার রাজনীতিকরা।

ভারতের কর্ণাটকে মুসলিম ছাত্রীদের ক্লাসে হিজাব পরার দাবিতে চলমান আন্দোলনে সমর্থন জানিয়েছেন শান্তিতে নোবেলজয়ী পাকিস্তানি তরুণী মালালা ইউসুফজাই। হিজাব পরে মেয়েদের স্কুলে যেতে নিষেধ করার ঘটনাটিকে ভয়াবহ উল্লেখ করে করে ভারতের মুসলিম নারীদের কোণঠাসা না করতে ভারতের ক্ষমতাসীন দল হিন্দুত্ববাদী বিজেপির রাজনীতিকদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন তিনি।

কর্নাটকে হিজাব বিতর্ক নিয়ে টুইটারে একটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন পোস্ট করেন মালালা। সেই প্রতিবেদনের শিরোনামে ছিল, আমায় বুঝিয়ে দেওয়া হয় যে আমি মুসলিম…।’ সেই প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে মালালা লেখেন, পড়াশোনা এবং হিজাবের মধ্যে কোনও একটা বেছে নিতে আমাদের বাধ্য করছে কলেজ।

হিজাব পরে মেয়েদের স্কুলে যেতে নিষেধ করার বিষয়টি ভয়াবহ। খোলামেলা পোশাক হোক বা ঢাকা পোশাক – মহিলাদের অবজেক্টিফিকেশনের ধারা অব্যাহত আছে। মুসলিম মহিলাদের যাতে কোণঠাসা না করা হয়, সেই বিষয়টি ভারতীয় নেতাদের অবশ্যই দেখতে হবে।

উল্লেখ্য, গত মাসে (জানুয়ারি) ভারতের কর্ণাটকের উদুপি জেলায় এক সরকারি কলেজের কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের ইউনিফর্ম-সংক্রান্ত কিছু বিধি জারির পরই রাজ্যজুড়ে হিজাব বিতর্ক শুরু হয়। নতুন বিধিতে বলা হয়, হিজাব পরে ক্লাস করা যাবে না। হিজাবকে বৈষম্য সৃষ্টিকারী বলে উল্লেখ করা হয়। কর্তৃপক্ষের নির্দেশ অনুযায়ী, ছাত্রীরা ‘স্কার্ফ’ পরতে পারবে। তবে তার রং হতে হবে ওড়নার রঙের সঙ্গে মানানসই।

৬ শিক্ষার্থী তখন অভিযোগ করেন, হিজাব পরতে চাওয়ায় তাদের ক্লাস করতে দেওয়া হয়নি। এ নিয়মের প্রতিবাদে মুসলমান শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ জানান। স্থানীয় কট্টরপন্থী হিন্দু সংগঠনগুলো এর বিরোধিতা করলেও দলিত হিন্দুদের অনেকে মুসলিম শিক্ষার্থীদের সমর্থন জানিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছেন।

এ নিয়ে কয়েক দিন ধরেই কর্নাটকের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে হিজাব নিষিদ্ধ করার দাবিতে গেরুয়া উত্তরীয় পরে বিক্ষোভ করেছে হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলো। পাল্টা হিজাবের সমর্থনে পথে নেমেছে মুসলিম শিক্ষার্থীরা।

Back to top button