সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত হচ্ছে সাগর-রুনি হত্যা মামলা: র‍্যাব

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যার পেরিয়ে গেলো ১০ বছর । এ মামলার তদন্তকারী সংস্থা র‍্যাব মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দেয়ার সময় পিছিয়েছে ৮৫ বার। তবে র‍্যাব বলছে তারা যখন মামলার তদন্ত করে তখন সর্বোচ্চ পেশাদারিত্বের মাধ্যমেই তদন্ত করে থাকে। সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েই তদন্ত করছে বলেও জানানো হয়েছে র‍্যাবের পক্ষ থেকে।

এখন পর্যন্ত ১৬০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেছে র‍্যাব। তদন্ত নিয়ে খারাপ লাগার কিছু নেই। শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত সম্পর্কে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইং পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

বাদীপক্ষ মামলার তদন্তে র‍্যাবের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে র‍্যাব মুখপাত্র বলেন, আমরা এ মামলার তদন্তের অগ্রগতি প্রতিটি তারিখে আদালতকে অবহিত করছি। আমরা এখন পর্যন্ত এ ধরণের কোনো অভিযোগ বা বক্তব্য পাইনি। তিনি আরও বলেন, আদালতও আমাদের কিছু বলেনি। এখানে তদন্ত নিয়ে খারাপ লাগার কিছু নেই।

বাংলাদেশের কয়টি মামলায় আলামত পরীক্ষা করে আসামীকে সনাক্তের চেষ্টা করা হয়। আমরা কিন্তু সেটিই করছি। আমরা চাই এটি দ্রুত শেষ হোক। এবং নিরাপরাধ কেউ সাজা না পাক। খন্দকার আল মঈন বলেন, আমাদের একটাই উদ্দেশ্য থাকে সেটা হচ্ছে নিরাপরাধ কোনো ব্যক্তি যেন দোষী সাব্যস্ত না হয়। র‍্যাব সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে করছে।

সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য তিনি বলেন, আপনারা জানেন আমরা সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত ভার গ্রহণ করেছি দুই মাস পর। আমরা রিমান্ডে এনে অনেককে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। সরকার এতোটাই গুরুত্ব দিয়েছে যে এই মামলার তথ্য-উপাত্ত প্রমাণের জন্য আলামত পরীক্ষা করতে দেশের বাইরে পাঠানো হয়েছে। আলামত পরীক্ষার প্রতিবেদন পেতে সময় লেগেছে।

আমরা মাত্র কিছুদিন আগে পেয়েছি। তদন্ত চলমান। সাগর-রুনি হত্যার ১০ বছর হয়ে যাচ্ছে, আর কতো দেরি হলে দ্রুত সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেয়া সম্ভব জানতে চাইলে তিনি বলেন, র‍্যাব এই মামলা তদন্ত করছে আদালতের নির্দেশে। আমরা সব দিক বিবেচনায় তদন্ত করছি। এমন চাঞ্চল্যকর মামলার তদন্ত করার মতো সক্ষমতা কি তবে র‍্যাবের নেই? জানতে চাইলে কমান্ডার মঈন বলেন, র‍্যাব অনেক চাঞ্চল্যকর মামলার তদন্ত করেছে।

র‍্যাব কখনো নিজে থেকে মামলার তদন্ত করে না। আদালত অনুমতি দিলেই কেবল তদন্ত করে। আমরা যে আজ একটি অভিযান পরিচালনা করেছি এটারও আলামত ও আসামী থানায় সোপর্দ করা হবে। সুতরাং নিয়মতান্ত্রিক উপায়েই র‍্যাব সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত করছে। র‍্যাব যখনই তদন্ত করে নিরাপরাধ ব্যক্তি যেন দোষী সাব্যস্ত না হয় সেদিকটায় খেয়াল রাখে।

সুত্রঃ বাংলাদেশ জার্নাল

Back to top button