প্রেম থেকে ঘনিষ্ঠতা, লাপাত্তা প্রেমিক! প্রেমিকের বাড়িতে ৭ দিন ধরে অনশনে প্রেমিকা

বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়িতে গত (৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে অনশন করছেন প্রেমিকা। ঘটনাটি পটুয়াখালী জেলার দুমকি উপজেলার। উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়নের উত্তর মুরাদিয়া এলাকায় প্রেমিক অসিম সরকারে বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন মুক্তা হালদার নামের এক কলেজছাত্রী। তিনি এবার এইচএসসি পরীক্ষার্থী। প্রেমিকা বাড়িতে অবস্থান করার খবরে পালিয়েছেন সেই প্রেমিক।

পটুয়াখালীর দুমকি উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের অনীল সরকারের ছোট ছেলে অসীম সরকার (২৬) ও পটুয়াখালী সদর উপজেলার লোহালিয়া ইউনিয়নের কাকড়াবুনিয়া গ্রামের শ্রী সুবাস হালদারের কন্যা মুক্তা হালদার দীর্ঘ চার বছরের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন। দুজনের সম্মতিতে প্রেম থেকে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে গড়ায়। এক পর্যায়ে মেয়ে বিয়ের কথা বললেই সম্পর্কে ফাটল ধরে। পরবর্তী পর্যায়ে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে ওই তরুণী।

প্রেমিক অসিম সরকারের বাড়িতে অবস্থান নেয়ার পর থেকে প্রেমিক অসিম সরকার আত্মগোপনে রয়েছেন বলে দাবি করেছেন প্রেমিকা মুক্তা। ওই তরুনী আরও জানান, চার বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক। প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রেমিক অসিম সরকার তার সঙ্গে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়েছে।

সম্প্রতি বিষয়টি পরিবার জেনে যায়। এরপর থেকেই অসিম সরকারকে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু প্রেমিক অসীম সরকার বিয়েতে রাজী হচ্ছিল না, তাই বাধ্য হয়েই প্রেমিকের বাড়িতে তিনি অনশন শুরু করেছেন। প্রেমিক বিয়ে না করলে আত্মহত্যা করবেন বলেও জানান ওই কলেজছাত্রী।

অনশনকারী ওই কলেজ-ছাত্রীর মা অভিযোগ করে বলেন, তার মেয়ে বিয়ের দাবিতে অসিম সরকারের বাড়িতে অবস্থান করছে। অসিমকে তার প্রভাবশালী পরিবার আত্মগোপনে রেখে মীমাংসার নামে মেয়ের ওপর নানা ভাবে চাপ সৃষ্টি করছে এবং কয়েকটি সাদা কাগজে জোরপূর্বক স্বাক্ষরও নেয়া হয়েছে বলে তিনি দাবী করেন।

আত্মগোপনে থাকায় এ নিয়ে প্রেমিক অসিম সরকারের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে তার মা বলেন,এ ঘটনার পর থেকে আমার ছেলের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ নেই। অসীম সরকারের বাবা অনিল সরকার বলেন আমি ছেলের সাথে বিয়ের মাধ্যমে এটার একটা সমাধান করবো।

উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান শিকদার বলেন, বিষয়টি নিয়ে উভয় পরিবারের উপস্থিতিতে আলোচনা হয়েছে।ছেলের পক্ষকে দুই দিনের সময় দেয়া হয়েছে ছেলেকে উপস্থিত করার জন্য।

এ বিষয়ে দুমকি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুস সালাম জানান, এ নিয়ে ওই কলেজ-ছাত্রী এখনো থানায় কোনো অভিযোগ দেয়নি।অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Back to top button