পুতিন কি পারমাণবিক বোমা ফেলার বিষয়ে ভাবছেন?

ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসন চলছে। দেশটির রাজধানী কিয়েভসহ বিভিন্ন শহরের রাস্তায় রাস্তায় চলছে তীব্র লড়াই। এ লড়াইয়ের মধ্যেই ইউক্রেন ও রাশিয়ার প্রতিনিধিরা যুদ্ধবিরতির জন্য আলোচনায় বসছেন। ইউক্রেনের একটি প্রতিনিধিদল প্রিপিয়াত নদীর কাছে ইউক্রেন-বেলারুশ সীমান্তে রাশিয়ার প্রতিনিধি দলের সঙ্গে ‘শর্তহীন’ এ বৈঠকে বসবে।

তবে এরইমধ্যে নিজ দেশের পারমাণবিক বাহিনীকে (নিওক্লিয়ার ফোর্স) সতর্ক থাকতে বলেছেন পুতিন। তাদেরকে ‘কান খাড়া’ করার কারণ কি? পুতিন কি পারমাণবিক বোমা ফেলার বিষয়ে ভাবছেন?

নাকি ইউক্রেনে সাহায্যে এগিয়ে আসা পশ্চিমা বিশ্বকে সতর্ক বার্তা দিতে চাচ্ছেন তিনি? এ রকম নানা প্রশ্ন সামনে আসছে।এ বিষয়ে মস্কোতে দায়িত্ব পালন করা ব্রিটিশ সাংবাদিক স্টিভ রজেনবার্গ বলেন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন কখন কী করতে যাচ্ছেন, তা অনুমান করা খুব কঠিন।

স্টিভ রজেনবার্গ তার এ কথার পক্ষে বেশ কিছু যুক্তিও দেখিয়েছেন। তিনি বলেন, পুতিন কখনো ক্রিমিয়া দখল করবেন না বলে জানিয়েছিলেন। তিনি তা করেছেন।পুতিন বলেছিল, দোনবাসে তিনি কখনো যুদ্ধ শুরু করবেন না। তিনি সেটাও করেছেন। ইউক্রেনে হামলা চালাবেন না বলেও হামলা চালিয়েছেন।

স্টিভ রজেনবার্গ বলেন, যখনই ভেবেছেন, পুতিন কখনোই এমন কাজ করবেন না, তখনই ঠিক সেটাই ঘটেছে।এ কারণে, পুতিন যে পারমাণবিক অস্ত্রের ব্যবহার করবেন না, এটা নিশ্চিত করে বলা যায় না।ইউক্রেন যুদ্ধকে কেন্দ্র করে তাই বড় ধরনের যুদ্ধের শঙ্কাও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। এ যুদ্ধে ইউক্রেনের পক্ষে সরাসরি পশ্চিমা দেশগুলো নেমে পড়লে ফল হতে পারে ভয়াবহ।

এ নিয়ে ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরুর আগেই ঘোষণা দিয়েছিলেন পুতিন। তিনি বলেছিলেন, ইউক্রেনের সঙ্গে যুদ্ধে অন্য কোনো দেশের হস্তক্ষেপ তিনি মেনে নেবেন না; এর জবাব দিবেন তাৎক্ষণিক।অনেকেই মনে করেছিলেন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শেষ হয়ে যাবে ইউক্রেন যুদ্ধ। পরাজিত হবেন ভলোদিমির জেলেনস্কি ও তার বাহিনী। কিন্তু তা হয়নি। ইউক্রেনের বিভিন্ন শহরে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছেন তারা।

Back to top button