ইউক্রেন যুদ্ধে আমেরিকায় বিশ্বাসী দেশগুলোর জন্য রয়েছে শিক্ষা: হিজবুল্লাহ মহাসচিব

ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালাচ্ছে বিশ্বের অন্যতম পরাশক্তি রাশিয়া। স্থানীয় সময় গত বৃহস্পতিবার ভোরে এই হামলা শুরু হয়। আজ বুধবার হামলার সপ্তমদিন। রাশিয়া-ইউক্রেনের এই যুদ্ধকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপের সবচেয়ে বড় সংঘাত বলে মনে করা হচ্ছে।

ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে এবার মন্তব্য করলেন লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহর মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ। তিনি বলেছেন, ইউক্রেনের চলমান পরিস্থিতির জন্য আমেরিকাই দায়ী।

তিনি লেবাননের রাজধানী বৈরুতে সাবেক হিজবুল্লাহ নেতা সাইয়েদ আব্বাস আল-মুসাভির শাহাদাতের ত্রিশতম বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক সম্মেলনের উদ্বোধনী ভাষণে একথা বলেন।
১৯৯২ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি লেবাননের হিজবুল্লাহর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা নেতা সাইয়্যেদ আব্বাস মুসাভি ইহুদিবাদী ইসরায়েলের বিমান হামলায় স্ত্রী ও এক ছেলেসহ নিহত হন। মৃত্যুর সময় তিনি হিজবুল্লাহর দ্বিতীয় মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করছিলেন।

তার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সম্মেলনে সাইয়্যেদ নাসরুল্লাহ আরও বলেন, ইউক্রেনের বিরুদ্ধে রাশিয়ার সামরিক অভিযানকে কেউ কেউ সমর্থন করেছেন, কেউ কেউ নিন্দা জানিয়েছেন এবং অনেক আবার নিরপেক্ষ অবস্থান ঘোষণা করেছেন। কিন্তু যে বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ সেটি হচ্ছে, বিশ্বকে নাড়া দেওয়ার মতো এই ঘটনা পর্যালোচনা করে প্রতি মুহূর্ত থেকে শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

তিনি বলেন, বর্তমানে ইউক্রেনে যা কিছু ঘটছে তার দায় আমেরিকার। কারণ, ওয়াশিংটন এই সংঘাতকে উসকে দেওয়ার পাশাপাশি যুদ্ধ প্রতিহত করা ও কূটনৈতিক সমাধানের পথগুলো বন্ধ করে বরং যুদ্ধ শুরু করার মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছিল। সাইয়্যেদ নাসরুল্লাহ বলেন, ইউক্রেনকে রাশিয়ার বিরুদ্ধে উসকে দিয়ে সরে পড়েছে আমেরিকা। এই ঘটনায় তাদের জন্য শিক্ষা রয়েছে যারা আমেরিকাকে বিশ্বাস করে এবং তাদের ওপর নির্ভর করতে চায়।

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় দোনবাস অঞ্চলের কর্মকর্তারা দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার আওতায় সম্প্রতি রাশিয়ার কাছে সামরিক সহযোগিতা চাইলে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালানোর নির্দেশ দেন।ওই অভিযান বর্তমানে চলমান রয়েছে। সূত্র: সিনহুয়া

Back to top button