পান পাতায় রূপচর্চা

জম্পেশ খাওয়ার পর একটু পান খেতে পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। প্রতিদিন খাওয়ার শেষে গাল ভর্তি পান খেয়ে ঠোঁট লাল না করলে তো অনেকের চলেই না। বিশেষ করে বয়স্করা ক্ষণে ক্ষণে পান খেয়ে ঠোঁট লাল করে রেখে দেন। খাওয়ার পরে পান খেলে তা খাবার হজমে সাহায্য করে। এছাড়া মুখের দুর্গন্ধ দূরীকরণেও পানের জুড়ি নেই। পানের সাথে সুপারি সেই সাথে বিভিন্ন মশলা যেমন কালোজিরা, ধনে, গুয়া মুড়ি প্রভৃতি সহ বিভিন্ন পান মশলা মিশিয়ে খাওয়া হয়। যা খেতে সুস্বাদু ও মজাদার হয়।

পান যে শুধু খাওয়া হয় তা কিন্তু নয়। ত্বকের যত্নেও পান বেশ কার্যকর ভূমিকা পালন করে। সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে ত্বকের নিয়মিত যত্ন নেওয়া উচিত। ত্বকের যত্ন নিতে একটি মাধ্যম হতে পারে পান পাতা। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক ত্বকের যত্নে কিভাবে পান পাতার ব্যবহার করবেন। পান পাতা মাথার ত্বকের জন্য বেশ উপকারী। পান পাতা বেটে নিয়ে নারিকেল তেলের সাথে ভালো ভাবে মিশিয়ে নিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।

তারপর মাথার ত্বকে ভালো করে লাগান। বিশেষ করে চুলের গোড়াতে মালিশ করে দিন। ১ ঘণ্টা রেখে চুল শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রতি সপ্তাহে ২-৩ দিন এই পদ্ধতি প্রয়োগ করতে পারেন, এতে করে অতিরিক্ত চুল পড়া কমে যাবে এবং নতুন চুল গজাতে শুরু করবে। বর্তমানে প্রায় সকলেরই এলার্জি সমস্যা থাকে। তাই যাদের এলার্জি সমস্যা আছে তারা এই সমস্যা দূর করতে পান পাতা ব্যবহার করতে পারেন।

একটি বাটিতে পানি নিয়ে তাতে ৮-১০ টা পান পাতা দিয়ে পানিকে ফুটিয়ে নিন। গোসলের পানির সাথে এই ফুটন্ত পানি মিশিয়ে ব্যবহার করুন। এতে করে ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা বা অস্বস্তি, এলার্জি বা র‍্যাশ দ্রুতই কমে যাবে। গোসলের পানির সাথে পান পাতার রস মিশিয়ে ব্যবহার করলে শরীরের দুর্গন্ধ দূরীকরণে বেশ উপকারী হয়। শরীরে দুর্গন্ধ সৃষ্টি কারী ব্যাকটেরিয়াকে পান পাতার রস বাড়তে বাধা দেয়।

এছাড়া শরীরের দূষিত পদার্থ (টক্সিন) শরীর থেকে বের করে দিতে পান পাতা দিয়ে ফোটানো পানি বেশ কার্যকর। খাওয়ার পরে পান খেলে তা হজমে সহায়তা করে, সেই সাথে মুখের দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়াকে বাড়তে দেয় না। ফলে মুখগহ্বরের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে ও মুখকে দুর্গন্ধ মুক্ত রাখতে পান বেশ উপকারী। সবশেষে বলা যায়, ত্বকের যত্নে পান পাতা হতে পারে খুবই ভালো ও উপকারী মাধ্যম। পুষ্টিগুণে ভরপুর পান খেতে যেমন মজাদার তেমনি ত্বকের যত্নেও কার্যকর।

Back to top button