জয়ের কাছে বাংলাদেশ

টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয় ইনিংসে ন্যুনতম ১৫৫ রান কিংবা তার বেশি স্কোর এর আগে ৮ বার করতে পেরেছে আফগানিস্তান। টি-টোয়েন্টিতে মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে আফগানিস্তান।  আজ হারলেও এগিয়ে থাকবে তারা। কিন্তু রান তাড়া করতে নেমে এর আগে কখনো হারেনি দলটি। অবশ্য বাংলাদেশের বিপক্ষে মাত্র একবারই পরে ব্যাট করেছে আফগানিস্তান।

এই পিচে ১৫৬ রানের টার্গেট কতটা চ্যালেঞ্জিং সেটি হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন আফগান ব্যাটসম্যানরা। ৮ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে আফগানরা। সেই বিপদ আর কাটিয়ে উঠতে পারছেনা নবীর দল।

আগের বলেই এগিয়ে এসে তুলে মেরেছিলেন। সেবার ফিল্ডার পর্যন্ত বল না যাওয়ায় বেঁচে যান আফগান অলরাউন্ডার। পরের বলেই একই কাজ করতে চেয়েছিলেন। আগেই এগিয়ে আসায় সাকিবও বল আগে ফেলেছেন। শেষ মুহূর্তে শট চেক করে কাভার দিয়ে মারতে চেয়েছিলেন নবী। বল একদম ফিল্ডার সোজা গিয়েছিল। আফিফকে খুব বেশি কিছু করতে হয়নি। জায়গায় দাঁড়িয়ে লুফে নেন ক্যাচ।

সাকিবের বলে আউট ২৭ রান করা জাদরান। জয়ের জন্য আর মাত্র ৪ উইকেট দরকার টাইগারদের।৩ ওভারে ৭ রানে ৪ উইকেট নাসুমের। বাংলাদেশের চতুর্থ বোলার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে পাঁচ উইকেট পাওয়ার জন্য ৬ বল হাতে পাচ্ছেন।

এর আগে জাজাইয়ের পর ফিরে যান দারউইশ রাসুলি। নাসুমের বলে বোল্ড রাসুলি। আগের ওভারেই জীবন পান জাজাই। শেষমেশ লং অফে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন।প্রথম ওভারে উইকেটের আনন্দে মেতে উঠলেন বাংলাদেশি স্পিনার নাসুম।

পেছনে সরে মারতে গিয়ে কাভারে ইয়াসির আলীর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন গুরবাজ। তৃতীয় ওয়ানডেতে শতক হাঁকানো গুরবাজ এবার ফিরলেন কোনো রান না করেই।আফগানদের স্কোর ১৩ ওভারে ৬ উইকেটে ৬৫ রান।

Back to top button