কম বয়সী প্রেমিককে পেতে স্বামীকে হত্যা করে লাশ পুঁতে রাখলেন স্ত্রী

কম বয়সী প্রেমিককে পেতেসংসার জীবনে স্বামী থাকা সত্ত্বেও নি’জ থেকে ছয় বছরের ছোট প্রেমিকের সঙ্গে সংসার করার জন্য খুন’চড়া হয়ে উঠেন রূপালী খাতুন। তার কাঙ্ক্ষিত কামনা বাসনা চরি’তার্থ করতে স্বামী জাহিদুল ইসলামকে দুধের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে হা’ত-পা চেপে ধরে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার করে লাশ বালুতে পুঁতে রা’খেন।

পরে ঘটনার ১০ দিন পর  গাজীপুর নগরীর কাশিমপুর শৈলডুবী এলা’কার একটি নির্মাণাধীন বাড়ির কক্ষে বালুর নিচ থেকে লাশটি উদ্ধা’র করে পুলিশ।মৃত জাহিদুল ইসলাম কুড়িগ্রাম জেলার রৌ’মারী থানার চর বোয়ালমারী গ্রামের আব্দুল বারেকের ছে’লে।

এ ঘটনায় শনিবার রাতে মৃতের স্ত্রী কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী থানার বড়া’ই কান্দি গ্রামের শুকুর আলী দেওয়ানীর মেয়ে রূপালী খাতুন এবং তার প্রে’মিক জামালপুর জেলার বকশীগঞ্জ থানার নীলেরচর গ্রামের নজরুল ইস’লাম সরকারের ছেলে মোহাম্মদ সুজন মিয়াকে গ্রেফতার করেছে পু’লিশ। গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (অপ’রাধ উত্তর) জাকির হাসান জানান, ভিকটিম জাহিদুলের স্ত্রী রূপা’লী খাতুনের সঙ্গে প্রেমিক সুজন মিয়ার বিগত ৮-৯ মাস ধরে প্রেমের সম্পর্ক চল’ছিল।

রূপালী বেশ কয়েকবার স্বামী জাহিদুলকে ফেলে প্রেমিক সুজনে’র কাছে জামালপুরের গ্রামের বাড়িতে চলে গিয়েছিল। এর’ই মধ্যে রূপালী তার স্বামী জাহিদুলকে হত্যার করে প্রে’মিক সুজনের স’ঙ্গে সংসার করার পরিকল্পনা করে। পরে গত ৬ জু’লাই রাত ১১টার দিকে ভিকটিম জাহিদুল বাসায়

আসলে পরিকল্পনা অনুযায়ী রূপালী দুধে’র সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে খাওয়ায়। রাত ১টার দিকে প্রেমিক সু’জন ঘুমন্ত জাহিদের হাত পা চেপে ধরে এবং রূপালী তার স্বামীর উ’পরে চড়ে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে দুজনে মি’লে বালির নিচে লাশ চাপা দেয়। স্বামীকে হত্যা করে লাশ পুঁতে রাখলেন স্ত্রী

Back to top button