রাজারহাটে বিদ্যালয়ের কমিটি নিয়ে আদালতে মামলা ও নোটিশ জারী

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের রাজারহাটের রতিগ্রাম বিএল উচ্চ বিদ্যালয়ের নব-গঠিত পরিচালনা কমিটির কার্যক্রমে কেন অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারী করা হবে না জানতে চেয়ে বিবাদীদের নোটিশ জারী করেছে আদালত। এর আগে ৯ মার্চ গোপনে বিধি-বহিভূত ভাবে উক্ত বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি গঠনের অভিযোগে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে রাজারহাট সহকারী জজ আদালতে মামলা করেন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী অভিভাবক জোদ্দার আলী।

অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার ঐতিহ্যবাহী রতিগ্রাম বিএল উচ্চ বিদ্যালয়ে এডহক কমিটি চলে আসাকালীন গত বছরের ২৭ ডিসেম্বর ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও এডহক কমিটির সভাপতি শিক্ষা অবকাঠামোর নীতিমালা উপেক্ষা করে গোপনে নিজেদের মনোনীত ব্যক্তিদের দিয়ে একটি নাম মাত্র কমিটি গঠন করেন।

পরে গোপনে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার অফিস থেকে ওই কমিটি অনুমোদন করা হয়। গত ২২ ফেব্রুয়ারী বিষয়টি ফাঁস হলে অভিভাবক ও এলাকাবাসী অবৈধ কমিটি বাতিলের দাবীতে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দাখিল করেন। তবে অভিযোগ দাখিলের আগেই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কমিটি অনুমোদন করে দেন।

এ কারণে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী অভিভাবক জোদ্দার আলী অবৈধ কমিটি বাতিলের দাবীতে গত ৯ মার্চ রাজারহাট সহকারী জজ আদালতে কুড়িগ্রাম জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামসুল আলম, রাজারহাট উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশরাফুজ্জামান সরকার, এডহক কমিটির সভাপতি তাইজুল ইসলাম, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব মোঃ রহমত আলী সহ ১৭জনের বিরুদ্ধে একটি অন্য মামলা দায়ের করেন।

পরে ১০ মার্চ ওই আদালতে মামলার বাদী জোদ্দার আলী কমিটির কার্যক্রম বন্ধে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদন করলে আদালত বিবাদীদের প্রতি সমন জারী করেন। কশিক্ষার্থী অভিভাবক মাইদুল ইসলাম বলেন, কমিটি গঠনের বিষয়ে আমরা কিছুই জানিনা। এমনকি নীতিমালা অনুয়ায়ী কোন প্রচার-প্রচারনা বা শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে তফশীল সম্পর্কে অবগত ছিলাম না। একারণে আদালতে মামলা হয়েছে বলে জানান।

মামলার বাদী জোদ্দার আলী জানান, অবৈধ কমিটি বাতিল করে একটি সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন কমিটি গঠণের লক্ষ্যে আদালতে মামলা করেছি।এবিষয়ে রতিগ্রাম বিএল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব মোঃ রহমত আলী আদালতে মামলা হওয়ার সত্যতা স্বীকার করে জানান, কমিটি নিয়ম মাফিক করা হয়েছে। তবে করোনাকালীন অনেক শিক্ষার্থীর অনুপস্থিতির কারণে হয়তো কমিটি গঠনের তথ্য তাদের অভিভাবকরা জানতে পারেনি।

রাজারহাট উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশরাফুজ্জামান সরকার বলেন, কমিটি বিধি মোতাবেক করা হয়েছে। মামলার বিষয়ে আমার কিছু জানা নেই।

রতি কান্ত রায় (কুড়িগ্রাম)

Back to top button