দেশের ৯০ ভাগ মানুষের আয় কমেছে : মির্জা ফখরুল

দেশের ৯০ ভাগ মানুষের আয় কমেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির কারণে মানুষের জীবন আজ দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে। কিন্তু সরকার সেটা অস্বীকার করছে। তাদের মন্ত্রীরা হেসে হেসে বলে, দাম যেমন বেড়েছে, মানুষের আয়ও তো বেড়েছে।

কার আয় বেড়েছে? তারা জিডিপির শুভংকরের ফাঁকি দেখায়। দেশের ৯০ ভাগ মানুষের আয় কমেছে আর দারিদ্র্যের হার দুই ভাগ বেড়েছে। কিন্তু সরকার মানুষকে বোকা বানানোর চেষ্টা করছে। সোমবার (১৪ মার্চ) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের আবদুস সালাম হলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।

নির্বাচন কমিশন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার নির্বাচন কমিশন গঠন করেছে যাতে আরেকটা ওই ধরনের (আগের নির্বাচনগুলোর ধারাবাহিকতা) নির্বাচন করা যায়। তবে এবার আর মানুষ তা মেনে নেবে না। মানুষ রুখে দাঁড়াচ্ছে, রুখে দাঁড়াবে।

তিনি আরও বলেন, মানবাধিকার এমন পর্যায়ে গেছে, যেখানে মানুষের কথা বলার সুযোগ নেই। আমরা তো কথা বলতে পারি না, সাংবাদিকরাও পারেন না। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন তো আছেই, সাথে আবার নতুন নীতিমালা করা হচ্ছে। এটি তৈরি হলে আমাদের টেলিফোনের কথাও তারা নিয়ন্ত্রণ করবে। আমাদের প্রাইভেসি বলে আর কিছু থাকবে না।

মওদুদ আহমদকে স্মরণ করে ফখরুল বলেন, মওদুদ আহমদ নিজেই একটি প্রতিষ্ঠান ছিলেন। তার পড়াশোনা, লেখালেখি, সর্বোচ্চ আদালতে যুক্তি উপস্থাপন এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দেশকে তুলে ধরার মাধ্যমে তিনি নিজেকে প্রমাণ করেছেন।

তার বেশ কয়েকটি বই বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়ানো হয়। ব্যারিস্টার মওদুদ সারা জীবন গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করেছেন। এ জন্যই তাকে বাসভূমি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে। অসংখ্য মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে।

মওদুদ আহমদকে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে মওদুদ আহমদের সহধর্মিণী হাসনা মওদুদ বলেন, মওদুদ আহমদ মুক্ত বেগম জিয়াকে দেখে যেতে চেয়েছিলেন কিন্তু আমরা তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারিনি।

Back to top button